বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ম্যালা রাত পর্যন্ত রান্না হয়েছে। ছোটবেলায় রংপুরের বাসায় মুরগি জবাই করতাম আমি, বা আমার ভাইয়েরা, আর বঁটিতে সেসব কুটতে বসতেন আম্মারা। আমি তো বলি, আমাদের মধ্যে কে পারবে গিলা বের করতে? মেয়েরা পারবেন। কোনো কোনো ছেলেও পারেন। যাঁরা পারেন, আর করেন, তাঁদের শ্রদ্ধা জানাই। তো কাটা-বাছা, রান্না করার পরই তো কাজ শেষ হয়ে যায় না। সেসব মিছিল-সিজিল করে রাখতে হয়।

[সিজিল-এর বাংলা অর্থ [সিজিল্‌] (বিশেষ্য) ১ পারিপাট্য; ব্যবস্থা (শৃঙ্খলা সিজিল কিছু নেই-কাজী নজরুল ইসলাম)।] আছে সার সার ডেকচি-হাঁড়ি-পাতিল-চামচ বাসনকোসন মাজা। অমর্ত্য সেনকে জিগ্যেস করা হয়েছিল, নবনীতা দেবসেনের সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হলো কেন? তিনি রসিকতার সুরে বলেছিলেন, বাসনকোসনের জন্য। মানে? খাওয়ার পর বাসনকোসন কে মাজবে, এ নিয়ে মতবিরোধ হওয়ায় অমর্ত্য-নবনীতা আলাদা হয়ে গিয়েছিলেন।

ঈদের দিন সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত আসবেন অতিথিরা। একজন করে আসছেন। টেবিলে বসছেন। খাচ্ছেন, খাচ্ছেন না। ‘সবার দুয়ার খোলা আজি/ কোথাও নেই মানা/ খাঞ্জা ভরে বিলাব আজ/ নানা রকম রকম খানা।’

তারপর? অতিথি বিদায় নেওয়ার আগেই থালাবাসন পরিষ্কার করতে হবে। টেবিল আবার রেডি। এ-ই চলবে বহু রাত পর্যন্ত। আমি ফুলবাবুটি তো ভাঁজভাঙা পাঞ্জাবি পরে নামাজ সেরে এসে ঈদসংখ্যা ওল্টাচ্ছি। টেলিভিশনের রিমোট টিপছি। বড়জোর ফেসবুকে লিখছি: ঈদ মোবারক। মেয়েদের সংগ্রাম চলছেই।

এর মধ্যে খবরে দেখলাম, কাল থেকে অনেক এলাকায় তিতাসের গ্যাসের সরবরাহ বিঘ্নিত হবে। আমাদের এলাকায় চাপ কম থাকবে। অনেক এলাকায় থাকবেই না। এই ধকল কে সামলাবেন? সংসারের নারীকেই তো সামলাতে হবে, সংসারের চাপ আর গ্যাসের চাপ না থাকার চাপ।

আগেকার দিনে আম্মারা তো সেলাই মেশিন নিয়েও বসতেন। ঈদের আগে বাচ্চাকাচ্চাদের জামা তাঁরাই সেলাই করতেন।

অর্থাৎ ঈদের আনন্দ সবার, কিন্তু ধকলের সিংহভাগ নারীদের। বিশেষ করে বিবাহিত নারীদের। বাবার ঘরে মেয়েরা হয়তো ভালোই থাকে। কিন্তু শ্বশুরবাড়িতে? কেমন থাকে, কেউ আমরা কোনো দিন ভেবে দেখি না। জিগ্যেস করি না।

ঈদের দিন বোধ হয় মেয়েদের কাছে আরেকবার মাফ চাওয়া উচিত বাড়ির পুরুষদের।
তবে নারীরা কিন্তু করেই আনন্দ পান। ভুলতে পারি না, আমাকে খেতে বসিয়ে আম্মা যে আমার মুখের দিকে তাকিয়ে থাকতেন, আমি খেলে সেই খাবার তাঁরই পাকস্থলীতে যেন পড়ত, সেই স্মৃতি তো আমার চির অমলিন থাকবে। এখন মেরিনাও কিছু রেঁধে আমাকে খেতে দিয়ে আমার মুখের দিকে তাকিয়ে থাকে। আমি ভালো বললে কী খুশিটাই না হয়! এই মহত্ত্বটা সৃষ্টিকর্তা তাঁদের দিয়েছেন। আমি ব্যাপারটাকে আরও মাহাত্ম্য দিয়ে তাঁদের রান্নাঘরে চিরবন্দী করে রাখার ফন্দি আঁটছি না। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এক চিঠিতে লিখেছিলেন: ‘মাতা বা গৃহিণীর বিশেষ বিশেষ মোড়কেই তাদের পরিচয়। তাদের মনুষ্যত্বের যে স্বাতন্ত্র্যটি মোড়ক ছাড়িয়েও প্রকাশ পায় তা কখনো বা অস্বীকৃত, কখনো বা নিন্দিত। এমনিভাবে মেয়েরা মানুষের একটি অংশমাত্র হয়েছিল। সমাজের অর্ধেক বা অর্ধেকের বেশি মানুষের পূর্ণতা খর্ব হয়ে একটা প্রকান্ড লোকসান ঘটিয়ে এসেছে। আজ এল এমন যুগ মেয়েরা মানবত্বের পূর্ণ মূল্য দাবি করছে।’ শুধু মাতা বা গৃহিণীর পরিচয়ের আড়ালে মনুষ্যত্বের পূর্ণতার অধিকার থেকে নারীকে যেন বঞ্চিত না করি।
আজ তাই ঈদের দিনে নারীদের দৃষ্টিকোণ বা পারস্পেকটিভ থেকেও উৎসবটাকে একটু দেখি না কেন। আমার চেয়ে যেকোনো নারী বিষয়টা অনেক ভালোভাবে উপলব্ধি আর প্রকাশ করতে পারবেন। আমি শুধু প্রসঙ্গটা পেড়ে রাখলাম। আর তাই ঈদের দিনে শুধু নারীদের আলাদা করে জানাই অনেক সালাম।

আর ধন্যবাদ জানাতে হবে আমাদের ঘরের পরিচারক-পরিচারিকাদের। আমাদের শকটচালকদের। আমাদের বাড়ির নিরাপত্তাকর্মীদের। পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের। তাঁরাও তো নিজেদের ঘরবাড়ি–বাবা-মা-আত্মীয়স্বজন ফেলে আমাদেরকেই স্বজন হিসেবে গ্রহণ করেছেন। এ সুযোগে তাঁদেরও জানাই গভীর কৃতজ্ঞতা।
সবাইকেই জানাই ঈদ মোবারক।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন