বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

চিকিৎসকেরা জানান, মাহাদি এখন উঠে বসছেন, হাঁটাহাঁটি করছেন। কথা বলছেন। তবে রাতে তাঁর ১০১–এর মতো জ্বর আসে। পরে তা চলে যায়। জ্বরের কারণ চিহ্নিত করতে বিভিন্ন পরীক্ষা–নিরীক্ষা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন নিউরোসার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাহফুজুল কাদের। তিনি বলেন, অস্ত্রোপচারের ৫ দিনের মাথায় জ্বর এসেছে। নতুন করে কোনো সংক্রমণ হলো কি না, তা খতিয়ে দেখতে সম্ভাব্য সব পরীক্ষা–নিরীক্ষা করা হবে। জ্বরের সব কারণ মাথায় রেখে পরীক্ষা–নিরীক্ষা করা হবে।

চিকিৎসকেরা জানান, তাঁকে আইসিইউতে রাখা হবে। কারণ, অন্য ওয়ার্ডে রাখা হলে লোকজনের ভিড় বাড়বে। তাতে ইনফেকশনের ঝুঁকি থাকবে। মাথার ব্যান্ডেজ কয়েক দিন পরপর বদলে দেওয়া হবে।

জানতে চাইলে চমেক নিউরোসার্জারি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক নোমান খালেদ চৌধুরী বলেন, দিন দিন তাঁর অবস্থার উন্নতি হচ্ছে। যেহেতু মাথার আঘাত, তাই একটু সময় লাগবে। এর মধ্যে সে উঠছে, হাঁটাহাঁটি করছে।

মাহাদি চমেক এমবিবিএস দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। গত শনিবার কলেজের সামনের রাস্তায় ছাত্রলীগের একটি পক্ষ তাঁর ওপর হামলা করে। তিনি শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরীর অনুসারী ছাত্রলীগের সমর্থক। এর আগের দিন শুক্রবার রাতে চমেক প্রধান ছাত্রাবাসে সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনপন্থী ছাত্রলীগের সঙ্গে এই পক্ষের মারামারি হয়। সেদিন দুজন আহত হয়েছিলেন। মারামারি ও হামলার ঘটনায় এ পর্যন্ত তিনটি পাল্টাপাল্টি মামলা হয়েছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন