তথ্যমন্ত্রী বলেন, এখন প্রশ্ন হচ্ছে, ১২ মিনিটে নিরাপদ সড়ক চাইয়ের অ্যাডমিন কীভাবে সেখানে পৌঁছালেন? বাঁশের কেল্লা কীভাবে ১৫ মিনিটের মধ্যে খবর পেল? ঘটনার ১৫ মিনিটের মধ্যে কীভাবে ১০ থেকে ১২টি গাড়িতে আগুন দেওয়া হলো? ছাত্ররা তো আগুন দেয়নি। কারণ, ঘটনার ১০ থেকে ১৫ মিনিটের মধ্যে এত ছাত্র সেখানে পৌঁছায়নি। তাহলে প্রশ্ন হচ্ছে, যারা ফেসবুক পেজে লাইভ দিয়েছে, তারা ঘটনা সম্পর্কে আগে থেকেই অবহিত ছিল কি না?

হাছান মাহমুদ বলেন, ছাত্রদের আন্দোলনে ভর করে একটি মহল দেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অপচেষ্টা চালাচ্ছে। গত পরশু রাতের ঘটনা থেকে তা স্পষ্ট। ছাত্রদের গায়ে কালিমা লেপন করার চেষ্টা চালাচ্ছে।

গত সোমবার রাতে রামপুরায় বাসের চাপায় মারা যায় মাইনুদ্দিন ইসলাম (১৭)। সে রামপুরার একরামুন্নেসা স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এসএসসি পরীক্ষা দিয়ে ফলের অপেক্ষায় ছিল।

মাইনুদ্দিন নিহত হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় লোকজন ওই রাতেই ক্ষুব্ধ হয়ে ১২টি বাসে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে।

মাইনুদ্দিন নিহত হওয়ার ঘটনায় তার মা রাশেদা বেগম বাদী হয়ে অনাবিল পরিবহনের বাসচালকের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেছেন। মামলায় চালকের নাম উল্লেখ করা হয়নি। মামলায় চালকের বিরুদ্ধে বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালিয়ে অবহেলাজনিত মৃত্যু ঘটানোর অভিযোগ আনা হয়।

অন্যদিকে, মাইনুদ্দিন নিহত হওয়ার জেরে গাড়ি ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় পুলিশ বাদী দুটি মামলা করেছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন