বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে জন্মাষ্টমী উদ্‌যাপন পরিষদ বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সুকুমার চৌধুরী বলেন, প্রতিবারই ধর্মীয় অবমাননার অজুহাতে সংখ্যালঘুদের মঠ, মন্দির, দেবালয়, ঘরবাড়ি ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ধ্বংস করা হচ্ছে। নিরীহ সনাতন ধর্মাবলম্বীদের হত্যা করা হচ্ছে। এসব ঘটনায় জড়িত প্রকৃত অপরাধীদের কঠোর শাস্তি দিতে হবে। মিয়ানমারে জাতিগত সহিংসতার শিকার ১৫ লাখ রোহিঙ্গাকে প্রধানমন্ত্রী এ দেশে আশ্রয় দিয়েছেন। তাহলে এ দেশের আড়াই কোটি হিন্দু কেন তাদের পিতৃভূমিতে অধিকার নিয়ে বেঁচে থাকতে পারবে না?

সংবাদ সম্মেলন থেকে যে উল্লেখযোগ্য দাবিগুলো জানানো হয়, তা হলো বাংলাদেশ থেকে সাম্প্রদায়িক বিষ উপড়ে ফেলতে হবে; ক্ষতিগ্রস্ত ও ধ্বংস হওয়া মঠ, মন্দির, আশ্রম দেবলায়গুলো রাষ্ট্রীয় অর্থায়নে সেনাবাহিনীর মাধ্যমে পুনর্নির্মাণ করতে হবে; পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বিভ্রান্তিকর মিথ্যা মন্তব্য প্রত্যাহার করতে হবে, সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন প্রণয়ন ও সংখ্যালঘু মন্ত্রণালয় গঠন এবং দুর্গাপূজার ছুটি তিন দিন ঘোষণা করতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ভগবান শ্রীকৃষ্ণের রাস মহোৎসব বৃহস্পতিবার থেকে চার দিনব্যাপী স্বাস্থ্যবিধি মেনে পালন করা হবে। এ উপলক্ষে জে এম সেন হল প্রাঙ্গণে চার দিনের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে সাধু ও বৈষ্ণবদের সংবর্ধনা, আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, লীলা প্রদর্শনী, ষোড়শ প্রহরব্যাপী মহানাম যজ্ঞ ও মহাপ্রসাদ বিতরণ।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন