ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের জন্য নতুন সৃষ্ট আবাসনসুবিধার কথা উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন বলেন, এই আবাসনব্যবস্থা জাতিসংঘ ও উন্নয়ন সহযোগীরা যথাযথভাবে পরিদর্শন ও মূল্যায়ন করে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে। এখানে তাদের রোহিঙ্গাবিষয়ক কর্মসূচির বাস্তবায়ন কাজ শুরু করেছে।

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ ও মানবাধিকার কাউন্সিলসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় রোহিঙ্গা ইস্যুটিকে সর্বদা জাগ্রত রাখতে অব্যাহতভাবে যেসব প্রচেষ্টা গ্রহণ করেছে, তা উল্লেখ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। পাশাপাশি এ বিষয়ে যথোপযুক্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে নিরাপত্তা পরিষদের ঘাটতির কথা তুলে ধরেন তিনি। আব্দুল মোমেন বলেন, নিরাপত্তা পরিষদ জাতিসংঘ সনদ অনুযায়ী তাদের দায়বদ্ধতা পরিপালন করবে বলে তিনি আশা করেন। তাঁর প্রত্যাশা, নিরাপত্তা পরিষদ রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানে অনতিবিলম্বে ও জরুরিভাবে পদক্ষেপ গ্রহণ করবে, যাতে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী তাদের নিজভূমিতে নিরাপদে ও মর্যাদাপূর্ণভাবে ফিরে যেতে পারে।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে আন্তর্জাতিক পদক্ষেপের পাশাপাশি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আঞ্চলিক সংস্থা, দেশ ও সংশ্লিষ্ট অংশীজনদের নিজ নিজ ক্ষেত্রে দায়িত্ব পালন করার জন্য অনুরোধ জানান।

আলোচকেরা রোহিঙ্গা সমস্যার টেকসই সমাধানে তাঁদের সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করেন। রোহিঙ্গাদের আশ্রয়দানের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ সরকারের মানবীয় উদারতার ভূয়সী প্রশংসা করেন তাঁরা। সবাই এ সমস্যার মূল কারণ খুঁজে বের করে তা সমাধানের কথা বলেন। তাঁরা উল্লেখ করেন, এ সমস্যার শিকড় মিয়ানমারে নিহিত। প্যানেল আলোচকেরা মিয়ানমারে মানবাধিকার লঙ্ঘনের শিকার মানুষের ন্যায়বিচার নিশ্চিতে দায়বদ্ধতা নিরূপণের চলমান প্রক্রিয়ার প্রতি সমর্থন জানান।

জাতিসংঘের সদস্যরাষ্ট্র, সুশীল সমাজসহ অন্যান্য অংশীজন এ ভার্চ্যুয়াল আলোচনায় অংশগ্রহণ করে।

একই দিন জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৫তম অধিবেশনের সভাপতি ভলকান বজকিরের সঙ্গে বৈঠক করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন। আলোচনায় রোহিঙ্গা সমস্যা, জলবায়ু পরিবর্তন, করোনার টিকাসহ সংশ্লিষ্ট বিষয় উঠে আসে।

মিয়ানমারবিষয়ক বিশেষ সেশন আহ্বান করার জন্য ভলকানকে ধন্যবাদ জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। করোনার টিকাকে ‘গ্লোবাল পাবলিক গুড’ বা বৈশ্বিক জনপণ্য হিসেবে উল্লেখ করেন আব্দুল মোমেন। এ ক্ষেত্রে সবার অধিকার নিশ্চিত করার জন্য ভলকানকে তাঁর কার্যালয়ের মাধ্যমে ভূমিকা রাখতে অনুরোধ জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। ঢাকায় অনুষ্ঠিতব্য বিশ্ব শান্তি সম্মেলনে যোগ দেওয়ার জন্য ভলকানকে আমন্ত্রণ জানান আব্দুল মোমেন।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে মানবিক ভূমিকার জন্য বাংলাদেশকে ধন্যবাদ জানান ভলকান। এ ছাড়া জাতিসংঘ–সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন ইস্যুতে তাঁর অফিসকে সহযোগিতার জন্য তিনি বাংলাদেশের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

জাতিসংঘের স্বল্পোন্নত দেশ, ভূবেষ্টিত উন্নয়নশীল দেশ ও উন্নয়নশীল ক্ষুদ্র দ্বীপরাষ্ট্রসগুলোর উচ্চ প্রতিনিধি ও আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল ফেকিতা মোইলোয়া কাটোয়া উতয়কামানুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। অন্যান্য বিষয়ের মধ্যে তাঁরা স্বল্পোন্নত দেশগুলোর টেকসই ও অপ্রত্যাবর্তনযোগ্য উত্তরণ নিয়ে কথা বলেন। ২০২২ সালের জানুয়ারিতে কাতারের দোহায় অনুষ্ঠেয় এলডিসি-৫ সম্মেলনের প্রস্তুতিমূলক কমিটির কো-চেয়ার হিসেবে একটি সাহসী ও উচ্চাকাঙ্ক্ষী ফলাফল অর্জনে বাংলাদেশ সব অংশীজনের সঙ্গে কাজ করে যাবে বলে প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।