বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন জানান, লামা পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের চম্পাতলিপাড়ার কুয়েতপ্রবাসী নুর মোহাম্মদের বাড়ি বাইরে থেকে সারা দিন বন্ধ ছিল। বিকেলে পাড়ার লোকজন ও আত্মীয়দের সন্দেহ হয়। পরে জানালায় উঁকি দিয়ে প্রথমে দুই সন্তানের লাশ দেখতে পাওয়া যায়। এ সময় থানায় সংবাদ দিলে পুলিশ এসে দরজা ভেঙে প্রবাসীর স্ত্রী মাজেদা বেগম (৪০), এসএসসি পরীক্ষার্থী মেয়ে রাফি (১৬) ও ৯ মাস বয়সী নুরির লাশ উদ্ধার করে। নুর মোহাম্মদ কুয়েতে রয়েছেন।

প্রবাসী নুর মোহাম্মদের ছোট ভাই আবদুল খালেক জানান, তাঁর ভাবি মাজেদা বেগম তিন মেয়ে ও মাকে নিয়ে লামা পৌরসভার চম্পাতলিপাড়ার বাড়িতে থাকেন। বৃহস্পতিবার বড় মেয়ে ও তাঁর মা আলীকদমে বেড়াতে গিয়েছিলেন। তাঁরা সেখান থেকে ফেরেননি। দুই মেয়ে নিয়ে বাড়িতে ছিলেন মাজেদা বেগম।

লামা পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিল বশির আহম্মদ জানিয়েছেন, মা-মেয়ে তিনজনের লাশ বাড়ি থেকে পাওয়া গেছে। তবে কে, কখন ও কেন তাঁদের হত্যা করেছে, জানা যাচ্ছে না।

পুলিশ সুপার জেরিন আখতার জানিয়েছেন, চম্পাতলিপাড়ায় প্রবাসীর বাড়িতে লাশ উদ্ধারের কাজ এখনো চলছে। তাৎক্ষণিকভাবে বিস্তারিত কিছু জানা যায়নি।

পরে রাত পৌনে ১০টায় সহকারী পুলিশ সুপার (লামা সার্কেল) রেজওয়ানুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, নিহতদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এটা নিশ্চিতভাবে খুনের ঘটনা।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন