default-image
>

কাল বিকেলে গুলশানে আকরাম খানের 'ক্রিকেটার্স কিচেন' রেস্তোরাঁয় বাংলাদেশ অধিনায়কদের একটা মিলনমেলাই হয়ে গেল। শামিম কবির, গাজী আশরাফ, আকরাম খানের সঙ্গে ছিলেন শফিকুল হক ও খালেদ মাসুদ। একটু অন্যভাবে উপস্থিত ছিলেন মাশরাফিও।

সবার আগে চলে এলেন শামিম কবির। গাজী আশরাফ হোসেনও খুব একটা দেরি করেননি। এসেছেন নির্দিষ্ট সময়েই। তবুও শামিম কবির প্রিয় অনুজকে খোঁচাটা দিতে ছাড়লেন না, ‘কীরে আমার আগে তো আসতে পারতি!’ যেন মাঠের দিনগুলোয় ফিরে গেলেন দুজন। অধিনায়ক আগে নেমে পড়েছেন মাঠে, তাঁর সতীর্থ পিছু পিছু।

‘আপনি প্রথম অধিনায়ক, আপনিই তো প্রথমে আসবেন না’—গাজী আশরাফের সরস জবাব। ১৯৭৭ সালের জানুয়ারিতে এমসিসির বিপক্ষে যে ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক আঙিনায় পা রাখে বাংলাদেশ, সেটিতে অধিনায়ক ছিলেন শামিম কবির। আর বাংলাদেশের প্রথম ওয়ানডে অধিনায়ক গাজী আশরাফ—দুজনের নাম লেখা আছে দেশের ক্রিকেট ইতিহাসের পাতায়। তাঁরা কাল বিকেলে জড়ো এলেন 'ক্রিকেটার্স কিচেনে'। গুলশানের এই রেস্তোরাঁর স্বত্বাধিকারীও একজন অধিনায়ক—আকরাম খান, বাংলাদেশ ক্রিকেটের বাঁক বদলের অন্যতম কারিগর।

বাংলাদেশ ক্রিকেট সাপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিসিএসএ) ও সমগ্র প্রকাশনের যৌথ উদ্যোগে এবারের বই মেলায় প্রকাশিত ক্রীড়া সাংবাদিক রানা আব্বাসের বই 'বাংলাদেশের অধিনায়ক'-এর মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠান উপলক্ষে কাল স্নিগ্ধ বিকেলে আকরামের ক্রিকেটার্স কিচেনে অধিনায়কদের একটা মিলনমেলাই হয়ে গেল।

default-image

শামিম কবির, গাজী আশরাফ, আকরাম খানের সঙ্গে পরে যোগ দিলেন শফিকুল হক ও খালেদ মাসুদ। অধিনায়কদের জম্পেশ আড্ডাটা জমিয়ে তুলতে সপরিবারে এলেন সাবেক বাঁহাতি স্পিনার ও বাংলাদেশের অভিজ্ঞ আম্পায়ার এনামুল হক। এলেন সাবেক ওপেনার জাভেদ ওমর, ধারাভাষ্যকর আতহার আলী খান, ক্রীড়ালেখক ও কোচ জালাল আহমেদ চৌধুরী। হাতিরঝিলের পাশে সবুজ লনে উন্মুক্ত মঞ্চে বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে অধিনায়ক এবং সাবেক ক্রিকেটাররা ফিরে গেলেন তাঁদের অতীতে। স্মৃতির পুকুরে ডুব দিয়ে তাঁরা তুলে আনলেন কত ঘটনা।

অনুষ্ঠানে আসতে ভীষণ আগ্রহী ছিলেন বাংলাদেশের সবচেয়ে সফল অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। কিন্তু সংসদ অধিবেশন যোগ দেওয়ার তাড়া থাকায় তিনি সশরীরে উপস্থিত থাকতে পারেননি অনুষ্ঠানে। তবে একটি ভিডিও বার্তায় জানালেন উত্তরসূরিদের প্রতি শ্রদ্ধা, ‘রানা আব্বাসের বইয়ে শামিম কবির ভাই থেকে শুরু করে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ পর্যন্ত সবাই আছেন। সবাইকে একবার জানার সুযোগ হচ্ছে। নিজেকেও একবার পর্যালোচনা করার সুযোগ হচ্ছে। এই বইয়ে আমার অনেক শ্রদ্ধেয় বড় ভাইয়েরা আছেন, যাঁরা বাংলাদেশের অধিনায়ক ছিলেন। লেখককে ধন্যবাদ, তাঁর সৌজন্যে আমাদের ক্রিকেটের শুরুর দিকের ছবিটা আমরা দেখতে পাব এ বই থেকে।’

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন