default-image

সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলায় সংখ্যালঘু হিন্দুদের বাড়িঘরে হামলায় জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেপ্তার ও শাস্তি দাবি করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি৷ হামলার শিকার পরিবারগুলোর ক্ষতিপূরণ ও নিরাপত্তা দাবি করেছে সংগঠনটি৷

আজ শনিবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ দাবি জানান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি মো. রহমত উল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক মো. নিজামুল হক ভূইয়া৷

নোয়াগাঁও গ্রামের যুবক ঝুমন দাস (২৮) ফেসবুকে আপত্তিকর পোস্ট দিয়েছেন, এমন অভিযোগে এলাকায় উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে গত বুধবার সকালে লাঠিসোঁটা নিয়ে নোয়াগাঁও গ্রামে হামলা চালান বহু মানুষ।

বিজ্ঞাপন

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আমরা মনে করি, জাতি যখন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালন করছে, সেই সময়ে বিদেশি রাষ্ট্রপ্রধানদের উপস্থিতির মধ্যে হিন্দুসম্প্রদায়ের বাড়িঘরে হামলা ও লুটপাট করে কেউ কেউ বাংলাদেশকে বিশ্বের সামনে একটি সাম্প্রদায়িক ও প্রতিক্রিয়াশীল রাষ্ট্র হিসেবে উপস্থাপনের অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। এটি রাষ্ট্রবিরোধী অপরাধ।’

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, হেফাজতের নেতা মামুনুল ও ফয়জুল করীমের অনুসারীরা সংবিধান ও রাষ্ট্রবিরোধী বক্তব্যের মাধ্যমে উসকানি দিচ্ছেন। তাঁদের উসকানির কারণে শাল্লায় এ ধরনের হামলার ঘটনা ঘটেছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন