অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে ভ্রাতৃপ্রতিম শ্রীলঙ্কার জনগণের জন্য এই সহায়তা (ওষুধ) দিতে পেরে আমি আনন্দিত। এ বছর দুই দেশের কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছর পূর্তি উদ্‌যাপনের পর্বে এই সহযোগিতা বন্ধুত্ব ও সহমর্মিতার প্রতীক।’

আব্দুল মোমেন বলেন, ‘বন্ধু ও ঘনিষ্ঠ প্রতিবেশী হিসেবে শ্রীলঙ্কার সংকটের সময় পাশে দাঁড়ানোটা আমাদের জন্য সম্মানের বিষয়।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, কোভিড-১৯ মহামারির পাশাপাশি রাশিয়া-ইউক্রেনের সংঘাত বৈশ্বিক সরবরাহব্যবস্থা বিঘ্নিত করার মধ্য দিয়ে অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। প্রতিটি দেশ নানা মাত্রায় চ্যালেঞ্জের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা এর ব্যতিক্রম নয়। এই সংকটকালে অতীতের যেকোনো সময়ের তুলনায় পারস্পরিক সহযোগিতা অনেক বেশি জরুরি হয়ে পড়েছে।

এক প্রশ্নের উত্তরে আব্দুল মোমেন জানান, শ্রীলঙ্কাকে বাংলাদেশ ঔষধ শিল্প সমিতির পক্ষ থেকে ১০ কোটি টাকা ও বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে ১০ কোটি টাকা সমমূল্যের জরুরি ওষুধ সরবরাহ করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ঔষধ শিল্প সমিতির সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন, পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের (সচিব পূর্ব) মাশফি বিনতে শামসসহ পররাষ্ট্র ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

ঋণে জর্জরিত শ্রীলঙ্কা অভূতপূর্ব অর্থনৈতিক সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। দেশটির বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ আশঙ্কাজনকভাবে কমে গেছে। দেশটি রেকর্ড মূল্যস্ফীতির মুখোমুখি। লোডশেডিং, জ্বালানি–সংকট, খাদ্য ঘাটতিতে দেশটিতে গণ-অসন্তোষ ছড়িয়ে পড়েছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন