বিমানবন্দরে সলিহকে লালগালিচা সংবর্ধনা দেওয়া হয়। তিন বাহিনীর সুসজ্জিত একটি দল তাঁকে গার্ড অব অনার প্রদান করে। সলিহর সফর উপলক্ষে বিমানবন্দর এলাকা বর্ণিল সাজে সাজানো হয়।

বিমানবন্দর থেকে সলিহ সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে যান। তিনি মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। স্মৃতিসৌধে রক্ষিত শোক বইয়ে স্বাক্ষর করেন তিনি। এ ছাড়া স্মৃতিসৌধ প্রাঙ্গণে একটি বকুলগাছের চারা রোপণ করেন।

পরে সলিহ রাজধানীর ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। তিনি বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর পরিদর্শন করেন। সেখানে রাখা পরিদর্শন বইয়ে স্বাক্ষর করেন। এ সময় বঙ্গবন্ধুর ছোট মেয়ে শেখ রেহানা উপস্থিত ছিলেন।

সফরসূচি অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সলিহর দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের কর্মসূচি রয়েছে। এদিন সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সলিহ বৈঠক করবেন। পরে তাঁর সম্মানে বঙ্গভবনে একটি রাষ্ট্রীয় ভোজে যোগ দেবেন তিনি। সেখানে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করবেন। সফর শেষে এদিন রাতেই দেশে ফিরে যাবেন মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট।