বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আজ সোমবার প্রতিষ্ঠান তিনটির পক্ষ থেকে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, জাগো ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে একটি ভার্চ্যুয়াল চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এ অনুদানের কথা জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, তিন বছর মেয়াদি মিলিত এই অনুদান ব্যবহার করে জাগো ফাউন্ডেশন সারা দেশে ৪ হাজার শিক্ষার্থীর জীবনে একটি টেকসই পরিবর্তন নিয়ে আসবে এবং বাংলাদেশের উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করবে।

অনুদানের চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে সামিট গ্রুপ অব কোম্পানিজের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মুহাম্মদ আজিজ খান বলেন, সারা দেশে জাগোর দরিদ্র শিক্ষার্থীদের ওয়েবভিত্তিক শিক্ষার মডেল হয়ত ভবিষ্যতের পড়াশোনারই মডেল। সামিট দারিদ্র্য বিমোচনের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং জাগোর এই ইন্টারনেটভিত্তিক স্কুলগুলোকে সাহায্য করার সুযোগ পেয়ে তারা আনন্দিত।

বেক্সিমকো গ্রুপের বোর্ডের উপদেষ্টা শায়ান এফ রহমান রহমান বলেন, করোনা মহামারিতে অনেক শিশুর শিক্ষার অধিকার হারিয়ে যায়। তবে দেশব্যাপী ডিজিটাল অবকাঠামো এবং প্রযুক্তিগত দক্ষতা ব্যবহার করে অনেকের জন্য দূরশিক্ষণের সুযোগ তৈরি হয়েছে।

শিক্ষা খাতের সহায়তা এগিয়ে আসার জন্য সামিট ও বেক্সিমকোকে ধন্যবাদ জানান জাগো ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা করভি রাকসান্দ। তিনি বলেন,
বাংলাদেশের করপোরেট সেক্টরের দেশের মানুষের জন্য এগিয়ে আসার এটি একটি উদাহরণ।

ভার্চ্যুয়াল চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন সামিট গ্রুপের পরিচালক ফাদিয়া খান, আজিজা আজিজ খান ও সালমান খান এবং বেক্সিমকো থেকে ছিলেন গ্রুপ ডিরেক্টর আজমল কবির ও নির্বাহী পরিচালক সামিরা জুবেরী হিমিকা। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করে নবনিতা চৌধুরী।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন