বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মাছ কেটেবেছে প্যাকেটজাত করে একদম রান্নার উপযোগী করে ক্রেতার হাতে পৌঁছে দেন লামিয়া। আবার চাহিদা অনুযায়ী রান্না করা মাছও পৌঁছে যাচ্ছে লামিয়ার মাধ্যমে। ধীরে ধীরে লামিয়ার পরিচিতি বেড়েছে। একই সঙ্গে বেড়ে চলেছে মাসিক লেনদেন।

লামিয়া বলেন, ফেসবুক পেজের মাধ্যমে প্রতি মাসে তিনি গড়ে ১ লাখ ৩০ হাজার টাকার মাছ কেনাবেচা করেন। এর মধ্যে গুলশা, বোয়াল, আইড়, চিতল ও বাইন মাছের অর্ডার থাকে বেশি।

ভৈরব নৈশ মৎস্য আড়ত থেকে মাছ কিনে পরে সেটি প্রক্রিয়াজাত করে দেশের বিভিন্ন জেলায় পাঠান।

পৌর শহরের চণ্ডীবের দক্ষিণপাড়ার লামিয়ার নামের আগে যুক্ত হয়েছে উদ্যোক্তা খেতাব। পণ্য প্রক্রিয়াজাত ও পণ্য পৌঁছে দেওয়ার কাজে লামিয়ার অধীনে বেশ ৮–১০ নারী–পুরুষ খণ্ডকালীন কর্মী হিসেবে কাজ করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, করোনার প্রকোপের সময় থেকে অর্থনৈতিক চাপে পড়ে লামিয়ার মতো উপজেলার শতাধিক নারী উদ্যোক্তা হিসেবে নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করেছেন। ঘরে বসে নিজেদের সৃষ্টিশীলতা আর নতুন নতুন পরিকল্পনাকে কাজে লাগিয়ে এই উদ্যোক্তারা এখনো টিকে আছেন।

পণ্য তৈরি, বিপণন, বাজারজাতকরণ, গ্রাহকের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপনের মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো তাঁরা নিজ তাগিদেই শিখেছেন। এতে করে নারীরা যেমন স্বাবলম্বী হয়েছেন, তেমনি আশপাশের অন্য নারী–পুরুষদের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করেছেন।

উপজেলার শিমুলকান্দি ইউনিয়নের গোছামারা গ্রামের মেয়ে সুলতানা শাওন তাঁদেরই একজন। নিজস্ব ডিজাইনের পোশাক আর গৃহসজ্জার সামগ্রী বানিয়ে অনলাইনে বিক্রি করেন তিনি। ‘রঙঘুড়ি’ নামের একটি ফেসবুক পেজের মাধ্যমে তিনি এ ব্যবসা শুরু করেন।

সুলতানাও মাত্র পাঁচ হাজার টাকা পুঁজি নিয়ে ব্যবসা শুরু করেন। তিনি দেড় বছর আগে শুরু করা ব্যবসা থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় ১০ লাখ টাকার পণ্য বিক্রি করেছেন। তিনি জানান, বাজার থেকে কাপড় কিনে সেটি সেলাই করেন। এরপর সেটির ওপর নিজস্ব কারুকাজ করে বাজারজাত করেন। থ্রি–পিস, ওড়না, শাড়ি, বিছানার চাদর, কুশনসহ গৃহসজ্জার পণ্য বিক্রি করে থাকেন তিনি। স্থানীয় ক্রেতার পাশাপাশি এখন দেশের বিভিন্ন জেলা থেকেও অর্ডার আসে।

সুলতানা বলেন, ‘শুধু দেশে নয়, প্রবাসী বাঙালিরাও এখন আমার পণ্য ব্যবহার করছেন। আমেরিকা ও ইংল্যান্ডে বসবাসকারী কয়েকজন বাঙালি ব্যবসায়ী ফেসবুকের মাধ্যমে আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেন। পরবর্তী সময়ে তাঁরা কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে আমার অনেকগুলো পণ্য কিনেছেন। এখন ওই পণ্যগুলো ওই দেশের শোরুমগুলোতে বিক্রি হচ্ছে।’

ভৈরবের শহরের গৃহবধূ মিথিলা হোসাইন এখন পুরোদস্তুর উদ্যোক্তা। তাঁর রান্নাবান্নার শখ ছিল। পরিবারের লোকজনও তাঁর রান্না করা খাবার চেটেপুটে খেতেন। করোনাকালে স্বামীর আয়ে ভাটা পড়লে মিথিলার রান্নার এই শখই পরিবারে বাড়তি আয়ের সুযোগ তৈরি করে দেয়।

মিথিলার অনলাইন খাবারের দোকানের নাম ‘আহারিকা’। মূলত ঘরে বানানো স্বাস্থ্যসম্মত ও টাটকা খাবার ভৈরববাসীর দোরগোড়ায় পৌঁছে দেন তিনি। জন্মদিনের কেক, বিভিন্ন অনুষ্ঠানের জন্য পোলাও, রোস্ট, কোরমাসহ দেশি–বিদেশি খাবারের অর্ডার নেন। এ ছাড়া ওই পেজের মাধ্যমে ঘি, চা–পাতাও বিক্রি করেন তিনি। মিথিলার গড় মাসিক বিক্রি লাখ টাকার ওপরে।

মিথিলা বলেন, ‘করোনার সময় ঘরেই বসে ছিলাম। রান্নার শখকে কাজে লাগিয়ে কিছু একটা শুরু করতে চেয়েছিলাম। করোনা সবাইকে ভয়ে রাখলেও আমার জন্য আশীর্বাদ হয়ে এসেছিল।’

আরও নতুন নতুন রান্না শেখার মাধ্যমে নিজের ব্যবসার কলেবর আরও বড় করার স্বপ্ন দেখেন মিথিলা।

সিস্টারহুড ভৈরব, দুর্জয় ভৈরব উদ্যোক্তা ফোরাম, সুপার গার্লস, ভৈরব প্ল্যাটফর্মসহ স্থানীয় কয়েকটি ফেসবুক গ্রুপ ভৈরবের নারীদের উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য বিশেষ ভূমিকা রেখেছে।

সিস্টারহুড ভৈরব গ্রুপের অ্যাডমিন হালেমা তূজ স্নিগ্ধা বলেন, করোনাকালে এ অঞ্চলে শতাধিক নারী নিজেদের উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তুলেছেন। নারীরা ঘরে বসে অনলাইনে ব্যবসা পরিচালনা করছেন, বিষয়টি সমাজের অন্য নারীদের জন্য অনুপ্রেরণাদায়ক। সরকারিভাবে প্রশিক্ষণ আর সুযোগ–সুবিধা বৃদ্ধি করা গেলে আরও অনেক নারী উদ্যোক্তা হওয়ার মাধ্যমে সমাজের অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবেন।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন