default-image

প্রতিমন্ত্রী বলেন, এবারের বন্যায় সিলেটের ৬০ শতাংশ প্লাবিত হয়েছে। আর সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সুনামগঞ্জ। সুনামগঞ্জের ৮০-৯০ শতাংশ এলাকা পানিতে ডুবে গেছে। তিনি বলেন, গত দুই দিনে চার ফুট করে আট ফুট পানি বেড়েছে ওই এলাকায়, যা চিন্তাতীত।
পরিস্থিতি মোকাবিলায় সেনাবাহিনী, কোস্টগার্ড ও নৌবাহিনী একসঙ্গে উদ্ধারকাজ পরিচালনা করছে জানিয়ে এনামুর রহমান বলেন, শনিবার (১৮ জুন) রাতের মধ্যেই ক্ষতিগ্রস্তদের আশ্রয়কেন্দ্রে সরিয়ে আনা সম্ভব হবে। এরই মধ্যে সিলেট ও সুনামগঞ্জে বন্যার্তদের জন্য জেলা প্রশাসনের তহবিলে ৮০ লাখ টাকা করে নগদ অর্থ দেওয়া হয়েছে, যা দিয়ে চিড়া, মুড়ি,বিস্কুটসহ শুকনা খাদ্য দেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া দুই এলাকায় দেড় হাজার টন চাল পাঠানো হয়েছে। হাতে ৫ কোটি টাকা রয়েছে, আরও ২০ কোটি টাকা সাধারণ ত্রাণ (জিআর) তহবিল থেকে চাওয়া হয়েছে। বন্যা পরিস্থিতির অবনতি ঘটলেও সব ধরনের প্রস্তুতি রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সার্বক্ষণিক দেশের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি মনিটর করছেন জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী সব সময় খোঁজ নিচ্ছেন। তাঁর দিকনির্দেশনা মেনেই কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন