বিজ্ঞাপন

হঠাৎ নামা এই বৃষ্টিতে রাজধানীবাসীর মধ্যে স্বস্তি নেমে আসে। রাতে অনেকেই বাসার ছাদে বৃষ্টিতে ভিজতে বের হন।

default-image

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাস বলছে, রাজধানীর এই বৃষ্টির সঙ্গে অবশ্য বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড়ের সম্পর্ক নেই। মূলত টানা দাবদাহের কারণে স্থানীয়ভাবে তৈরি হওয়া মেঘের কারণে ওই বৃষ্টি শুরু হয়েছে। মঙ্গলবারও রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে বজ্রপাত ও কালবৈশাখী হতে পারে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ বজলুর রশীদ প্রথম আলোকে বলেন, এই বৃষ্টিপাতের মাধ্যমে আপাতত দাবদাহের অবসান হলো। আগামী কয়েক দিন টানা বৃষ্টি চলবে। ঘূর্ণিঝড় ইয়াস দেশের উপকূলে আঘাত না করলেও ২৭ মে পর্যন্ত রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি হবে।

default-image

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী, শুধু রাজধানীতেই নয়, চট্টগ্রাম থেকে শুরু করে কুমিল্লা হয়ে রাজধানী পর্যন্ত বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে বৃষ্টি শুরু হয়েছে। এটি আরও কয়েক ঘণ্টা চলবে। আগামী বুধবার থেকে টানা বৃষ্টি শুরু হতে পারে। ফলে আপাতত দেশের বেশির ভাগ এলাকা থেকে দাবদাহ বিদায় নেওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
আবহাওয়া অধিদপ্তরের হিসাবে, গতকাল রাজধানীতে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা উঠেছিল ৩৮ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর দেশের সবচেয়ে বেশি তাপমাত্রা ছিল চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে—৩৮ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত দেশে বেশি বৃষ্টি হয়েছে কুতুবদিয়ায়—৩৫ মিলিমিটার।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন