রেজল্যুশন প্রযুক্তি

টিভি আমাদের অবসরের সঙ্গী, দিনের ক্লান্তি কাটানোর একটা মাধ্যম। কিন্তু দেখা গেছে, টিভি দেখতে বসেই আপনি খুব ক্লান্ত অনুভব করছেন। এটা কেন হচ্ছে? কারণ, আপনার টিভির রেজল্যুশন ঠিক নেই। বাড়ির টিভিটির রেজল্যুশন যত বেশি হবে, তত স্পষ্ট ভিডিও দেখতে পারবেন সেই যন্ত্রের মাধ্যমে।

বর্তমানে যে টিভিগুলো পাওয়া যায়, বেশির ভাগ ক্ষেত্রে সেসব টিভির রেজল্যুশন হয়ে থাকে চার হাজার থেকে আট হাজারের মধ্যে। তাই রেজল্যুশনের দিক থেকে চিন্তা করলে টিভি কিনতে গেলে সর্বনিম্ন চার হাজার যেন থাকে—সেটা লক্ষ রাখবেন।

অডিও সম্পর্কে জানা

ভিডিও রেজল্যুশনের সঙ্গে সঙ্গে স্বস্তিতে টিভি দেখার আরেকটি বিষয় হলো এর অডিও বা সাউন্ড। যে টিভি কিনবেন, দেখে নিতে হবে সেটির সাউন্ড কোয়ালিটি কেমন। ঘড়ঘড়ে অডিও কিংবা বিরক্তি উৎপাদন করে, এমন অডিও থাকলে টিভি দেখা তখন আর বিনোদন থাকবে না, বিড়ম্বনার কারণ হয়ে দাঁড়াবে।

পোর্টসংখ্যা

বর্তমানে স্মার্ট টিভিগুলো অনেক কাজের জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে, যেমন ডিশ কেব্‌ল, স্যাটেলাইট চ্যানেল, ওয়াই–ফাইসহ আরও অনেক কিছু। তাই টিভি কেনার আগে আপনাকে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ভালো করে দেখতে হবে, সেটি হচ্ছে পোর্টসংখ্যা। এসব পোর্ট সঠিক আছে কি না, তা ভালো করে যাচাই করে দেখে টিভি কিনতে হবে।

সচেতন থাকতে হবে দামের ব্যাপারেও

টিভি কেনার আগে অবশ্যই আপনাকে দাম সম্পর্কে ভালোভাবে জেনে নিতে হবে। কারণ, আপনি যে টিভি কিনতে যাচ্ছেন, সেটির বাজারমূল্য কত এবং আপনি যেখান থেকে কিনছেন, সেটি মুখ্য বিষয়। টিভি কেনার আগে অনলাইন থেকে জেনে শোরুমে গিয়ে টিভি কিনলে আর সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে না।

কেমন হবে টিভির আকার

একেক টিভির একেক ধরনের আকার। এইচডিআর, ফোরকে, ডলবি ভিশন, এলইডি ও কিউএলইডি—যে প্রযুক্তিরই কিনুন না কেন, সবার আগে ভাবতে হবে টিভির আকার নিয়ে। ঘরে আনার পর শোরুমের চেয়ে ছোট বা বড় মনে হতে পারে, তাই টেপ দিয়ে মাপজোখ করে কেনাই ভালো।

আরও যা জানতে হবে

রেজল্যুশনের ওপর ভিত্তি করে বাজারে এলসিডি (লিকুইড ক্রিস্টাল ডিসপ্লে), এলইডি (লাইট এমিটিং ডায়োড), কিউএলইডি (কোয়ান্টাম ডট লাইট-এমিটিং ডায়োড) ও ওএলইডি (অর্গানিক লাইট-এমিটিং ডায়োড) টিভি পাওয়া যায়। উজ্জ্বল ছবি চাইলে কিউএলইডি বেছে নিতে পারেন।

এগুলোর ছবি বার্ন হয় না, দাম কম, আবার স্থায়িত্বও বেশি। অন্যদিকে সবচেয়ে ভালো রেজল্যুশন ও সাউন্ড পাওয়া যাবে ওএলইডি টিভিতে। মান ভালো বলে দামও কিছুটা বেশি। যদি আপনার বাজেট কিছুটা কম হয়ে থাকে, তবে নিতে পারেন এলসিডি ও এলইডি। গেম খেলার জন্য এলইডি টিভি ভালো। এলসিডি টিভির উন্নত সংস্করণই এলইডি টিভি। এতে ফ্লুরোসেন্ট আলোর বদলে বিশেষ ধরনের ব্যাকলাইট থাকে। এলইডি টিভি বিদ্যুৎসাশ্রয়ী।