আপনাকে নিয়ে খবর হলো। পরিচিত মানুষ কী বলছে?

আবদুল হান্নান: আমাকে নিয়ে প্রথম আলোতে প্রথম প্রতিবেদন আসে। এরপর গ্রামের বাড়ির লোকজন, আমার রিকশার যাত্রী ও পথে লোকজনের অনেক প্রশংসা পেয়েছি। এখনো ফোন করে লোকজন বাহবা দিচ্ছেন।

আপনার স্ত্রী কী বলেছেন?

আবদুল হান্নান: তিনি শোনার পর প্রথমে ভয় পেয়েছিলেন। পরে এক নারীকে রক্ষায় এগিয়ে আসার বিষয়টি জেনে আমার বউ খুশি হন।

পুলিশকে জানাতে গেলেন কেন?

আবদুল হান্নান: ওই নারীর জায়গায় আমার মা, বোন, স্ত্রী হলে কি চলে যেতে পারতাম! ঘটনার শিকার ওই নারী কারও মা, কিংবা বোন। নিজের বিবেক থেকে ঝুঁকি নিয়ে পুলিশকে জানিয়েছি।

পুলিশের উপহারের টাকা দিয়ে কী করেছেন?

আবদুল হান্নান: বাসার জন্য এক কেজি করে আপেল ও মাল্টা নিয়ে গেছি। এক হাজার টাকা বৃদ্ধ মায়ের হাতে দিয়েছি। বাকি টাকাগুলো রেখেছি, একটি ঘর করার জন্য।

৯৯৯–এ কল দিলে পুলিশ আসে, সেটি কীভাবে জেনেছেন?

আবদুল হান্নান: রাস্তায় বিভিন্ন গাড়ির পেছনে লেখা থাকে ৯৯৯। সেটা দেখে জানতে পারি। চার বছর আগে চট্টগ্রাম শহরের বহদ্দারহাট এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় এক ব্যক্তি নিহত হন। পরে এক পথচারী ৯৯৯-এ কল করলে পুলিশ এসে লাশ নিয়ে যায়। ওই দিনের পর থেকে আমার বিশ্বাস জন্মে যে ৯৯৯-এ কল করলেই পুলিশ আসবে।

ফোন করার পর ওপাশ থেকে কী বলেছিল?

আবদুল হান্নান: জানতে চেয়েছিল ‘আপনাকে কী সেবা দিতে পারি?’ এরপর আমি পুরো ঘটনার বর্ণনা দিলাম। ঘটনাস্থল কোন থানায় পড়েছে, তা জানতে চাওয়া হয়। জানি না, বলার কয়েক মিনিট পর আমাকে লাইনে রেখে তাঁরা জানান, এটি খুলশী থানায় পড়েছে। এরপর খুলশী থানা থেকে আমাকে ফোন করা হয়।

কতক্ষণ পর পুলিশ এসেছিল?

আবদুল হান্নান: ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর।

আসামিরা ধরা পড়ল, এখন কি নিরাপত্তার অভাব বোধ করছেন?

আবদুল হান্নান: ভয় পেলে হবে না, কাউকে না কাউকে তো এগিয়ে আসতে হবে।

মুঠোফোন কবে কিনেছেন?

আবদুল হান্নান: আট বছর আগে।

এর আগে ৯৯৯-এ কখনো কল দিয়েছিলেন?

আবদুল হান্নান: দুবার কল দিয়েছিলাম। প্রথমবার কল করার পর পুলিশ এলে এক হোটেল কর্মচারীকে তাঁর পাওনা পরিশোধ করেছিলেন মালিক। দ্বিতীয়বার একটি ওরস থেকে এক নারীকে তুলে নেওয়ার চেষ্টা করা এক যুবককে আটক করে পুলিশ।

পরিবারে স্ত্রী ছাড়া আর কে কে আছে?

আবদুল হান্নান: আমার মা ও দুই সন্তান।

রিকশা চালিয়ে দিনে আয় কত?

আবদুল হান্নান: ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা।

পড়াশোনা কত দূর করেছেন?

আবদুল হান্নান: তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত।

প্রথম আলো: রিকশা চালানোর পেশায় কেন এলেন?

আবদুল হান্নান: আগে চায়ের দোকানে কাজ করতাম। সংসার চালানোর জন্য রিকশা চালাই।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন