উৎসবে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলামসহ বাংলা সাহিত্যের খ্যাতিমান সব কবির কবিতা আবৃত্তি করার জন্য বেছে নিয়েছেন শিল্পীরা। এ ছাড়া থাকবে নতুন কবিদের কবিতাও। ‘চর্যাপদ’, কবি আলাওলের ‘পদ্মাবতী’, মধ্যযুগের ‘বৈষ্ণব পদাবলী’, ‘নদের চাঁদ ও মহুয়ার পালা’, শ্রুতিনাটক, ভারতচন্দ্র রায়গুণাকরের ‘অন্নদামঙ্গল’ কাব্যের অংশবিশেষও আবৃত্তি করা হবে এ উৎসবে। আয়োজকদের মতে, ‘শতকণ্ঠে শত কবির কবিতা আবৃত্তি’র মতো এত বড় উৎসব আগে কখনো হয়নি।

উৎসবের আয়োজন করেছে অনলাইনভিত্তিক আবৃত্তি সংগঠন আবৃত্তিপ্রেমী। কবিতা ও আবৃত্তি পছন্দ করেন—এমন ২ লাখ ২৩ হাজার মানুষ যুক্ত আছেন এই সংগঠনে। মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় চার পথশিশুকে আবৃত্তির প্রশিক্ষণ দেয় এই সংগঠন। সেই শিশুরাও এ উৎসবে আবৃত্তি করবে। উৎসবে থাকবে কুইজ ও রচনা প্রতিযোগিতা।

উৎসব উদ্বোধন করবেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শব্দসৈনিক আবৃত্তিশিল্পী আশরাফুল আলম। প্রধান অতিথি থাকবেন জাতীয় কবিতা পরিষদের সভাপতি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-উপাচার্য কবি মুহাম্মদ সামাদ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন আবৃত্তি উৎসব ও আবৃত্তিশিল্পী মিলনমেলা-২০২২-এর আহ্বায়ক এবং বাংলাদেশ বেতারের সংবাদ উপস্থাপক গাউছুল আজম। উদ্বোধনী পর্বে সম্মিলিতভাবে শতকণ্ঠে আবৃত্তি করাবেন মীর বরকত।