হাছান মাহমুদ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন যে আমরা পৃথিবীতে যুদ্ধ চাই না, যুদ্ধ কারও জন্য মঙ্গল বয়ে আনে না এবং একই সঙ্গে স্যাংশন (নিষেধাজ্ঞা), পাল্টা স্যাংশন এগুলোও কারও জন্য মঙ্গল বয়ে আনে না। প্রধানমন্ত্রীর যে বক্তব্য, আমাদের সরকারের যে অবস্থান, সেটি তাঁকে জানিয়েছি। তাঁকে বলেছি যে যুদ্ধ তাড়াতাড়ি শেষ হলে সবার জন্যই মঙ্গলকর; জিজ্ঞেস করেছি যে যুদ্ধ কখন শেষ হবে। তিনি বলেছেন, “আশা করি খুব শিগগির যুদ্ধ সমাপ্ত হবে।” তিনি আশার কথা বলেছেন।’

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘২০১৭ সালে বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা ও রাশিয়ার ইতারতাসের মধ্যে সংবাদ আদান–প্রদানের জন্য একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছিল। সেটিকে চুক্তিতে রূপান্তরের জন্য প্রস্তাব রেখেছি। রাশিয়ার অপর সংবাদ সংস্থা স্পুতনিকের সঙ্গেও আমাদের বাসসের সংবাদ আদান–প্রদানের প্রস্তাব দিয়েছি। পাশাপাশি আমাদের দেশের টিভি চ্যানেলগুলোতে অনেক দেশের সিরিয়াল চলে, সেখানে রাশিয়ার সিরিয়ালও বিবেচনায় নেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছি। আমি বলেছি, আপনারা প্রাইভেট টেলিভিশন চ্যানেলে প্রস্তাব রাখতে পারেন, তারা যদি আগ্রহী হয়, তাহলে সেটা হতে পারে। একটি টিভি চ্যানেলে একসঙ্গে একটি সিরিয়ালই প্রচার করা যায়। কথা হয়েছে সাংস্কৃতিক যোগাযোগ ও বিনিময় বৃদ্ধি নিয়েও।’

মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. ফারুক আহমেদ এবং মন্ত্রীর দপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সাক্ষাৎকালে উপস্থিত ছিলেন।