বাংলাদেশ ও ভারতের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসার পর তিনবার ক্যানসারকে জয় করেন সাইমুম। গত দুই সপ্তাহ আগে ভারতের চেন্নাইয়ের একটি হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে তিনি দেশে ফেরেন। কয়েক দিন আগে শারীরিক জটিলতা দেখা দেয়। এরপর তাঁকে চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ মা ও শিশু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই মারা গেলেন তিনি।

সাইমুম বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনার পাশাপাশি লেখালিখি, অনুবাদ ও ছোটকাগজ সম্পাদনার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। তাঁর বাবা মমতাজুল হক অবসরপ্রাপ্ত রেলওয়ে কর্মকর্তা ও মা কহিনুর বেগম গৃহিণী।

আজ জোহরের নামাজের পর নগরীর টাইগার পাস এলাকার মামু ভাগিনা মসজিদে তাঁর প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর গ্রামের বাড়ি সাতকানিয়া মৌলভীর দোকান এলাকায় রুস্তমপাড়ায় দ্বিতীয় জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাঁকে দাফন করা হবে।