শাহদীন মালিক আরও বলেন, গত দুই নির্বাচনে দেখা গেছে, আগের সংসদ সদস্যদের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে নতুন সংসদ সদস্যরা শপথ গ্রহণ করেন। তিনি মনে করেন, দেশ যেভাবে চলছে, তাতে সংবিধান বাদ দিয়ে দিলেও বোধ হয় কিছু যায়–আসে না।

বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) প্রধান নির্বাহী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান বলেন, ‘আমাদের সংবিধানের যে মূল চরিত্র, যে উদ্দীপনা ও প্রত্যাশা থেকে সংবিধান রচিত হয়েছিল, সেই মূল চরিত্র ও প্রত্যাশার জায়গায় বড় ধরনের কম্প্রোমাইজ (সমঝোতা) হয়ে গেছে। এটা সংবিধান সংশোধনী ও চর্চার মাধ্যমে হয়েছে। সংবিধানের মূল বৈশিষ্ট্য হচ্ছে ধর্মনিরপেক্ষতা। কিন্তু এর সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়, এমন অনেক কিছু সংবিধানে আনা হয়েছে কোনো গণভোট ছাড়া। রাজনীতিবিদেরা নিজেরা করে দিয়েছেন, তারপর এটা নিয়ে জনগণের মধ্যে বিভক্তি তৈরি হয়েছে।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক আসিফ নজরুল বলেন, মৌলিক অধিকার পাওয়ার সুযোগ প্রধানত ক্ষমতাসীন মহলের মধ্যে, কিছু ক্ষেত্রে বিত্তশালী মহলের মধ্যে সীমাবদ্ধ। সমাজের সুবিধাবঞ্চিত প্রান্তিক জনগণের মৌলিক অধিকার পাওয়ার সুযোগ খুবই সীমিত।
অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন শাহনাজ হুদা।