হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে হাজি সেলিম ও দুদকের করা পৃথক লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) শুনানির জন্য আজ আদালতের কার্যতালিকায় ওঠে। হাজি সেলিমের জামিন আবেদনটিও আজ একসঙ্গে শুনানির জন্য আদালতের কার্যতালিকায় ওঠে।

আদালতে হাজি সেলিমের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মোহাম্মদ সাঈদ আহমেদ। দুদকের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী খুরশীদ আলম খান।

পরে আইনজীবী সাঈদ আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, লিভ টু আপিলের শুনানি মুলতবি হয়েছে। জামিন আবেদন নথিভুক্ত করে ২৩ অক্টোবর শুনানির জন্য দিন রেখেছেন আপিল বিভাগ। সেদিন জামিন আবেদনের শুনানি হবে।

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা এই মামলায় বিচারিক আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে হাজি সেলিম হাইকোর্টে আপিল করেন। এই আপিলের ওপর গত বছরের ৯ মার্চ রায় দেন হাইকোর্ট। রায়ে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের দায়ে তাঁর ১০ বছরের সাজা বহাল রাখেন হাইকোর্ট। আর সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে তিন বছরের সাজা থেকে তাঁকে খালাস দেওয়া হয়।

হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায় গত ১০ ফেব্রুয়ারি প্রকাশিত হয়। রায়ের অনুলিপি পাওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে হাজি সেলিমকে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৭-এ আত্মসমর্পণ করতে নির্দেশ দেওয়া হয়।

হাইকোর্টের রায় অনুসারে গত ২২ মে হাজি সেলিম বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। এরপর তিনি জামিনের আবেদন জানান। ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৭-এর বিচারক জামিন আবেদন নাকচ করে হাজি সেলিমকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

পরদিন কেরানীগঞ্জের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে হাজি সেলিমকে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে নেওয়া হয়। হাজি সেলিম এখন এই হাসপাতালের প্রিজন সেলে চিকিৎসাধীন।

১০ বছরের সাজার বিরুদ্ধে ২৪ মে লিভ টু আপিলের পাশাপাশি জামিন চেয়ে আবেদন করেন হাজি সেলিম।

লিভ টু আপিল ও জামিন আবেদন গত ৬ জুন চেম্বার আদালতে ওঠে। সেদিন চেম্বার আদালত হাজি সেলিমের আবেদন শুনানির জন্য ১ আগস্ট আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে শুনানির জন্য পাঠান। এর ধারাবাহিকতায় আজ বিষয়টি ওঠে।

অন্যদিকে হাইকোর্টের রায়ে তিন বছরের সাজা থেকে হাজি সেলিমকে খালাস দেওয়ার বিরুদ্ধে ১০ মে লিভ টু আপিল করে দুদক, যা চেম্বার আদালত হয়ে আজ আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে শুনানির জন্য ওঠে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন