এ বিষয়ে সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল কাইয়ুম চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেন, কামালকে কারা খুন করেছে, এটা জানার চেষ্টা করছেন বিএনপি নেতারা। ১৯ নভেম্বর বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ সামনে রেখে পরিস্থিতি উত্তপ্ত করতেই এই খুন কি না, এটাও তাঁরা জানার চেষ্টা করছেন।

বিএনপি ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, কামাল বড়বাজার এলাকায় ব্যস্ত রাস্তা দিয়ে প্রাইভেট কারে করে যাচ্ছিলেন। এ সময় ছয়–সাতটি মোটরসাইকেলে করে কয়েকজন দুর্বৃত্ত এসে তাঁর গাড়ির পথ রোধ করে। পরে তাঁকে গাড়ি থেকে নামিয়ে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায় তারা। গুরুতর আহত অবস্থায় কামালকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

জানতে চাইলে জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক দিলোয়ার হোসেন ওরফে দিনার আজ প্রথম আলোকে বলেন, নিহত কামাল বিভিন্ন সময় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আওয়ামী লীগবিরোধী প্রচার–প্রচারণা চালাতেন। গত দুই সপ্তাহ আগেও তাঁর সঙ্গে বড়বাজারের পাশে চৌকিদেখী এলাকায় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কিছু নেতা-কর্মীর কথা–কাটাকাটি হয়।