আলোচনায় বক্তারা বলেছেন, দেশের অভ্যন্তরে সমন্বয় ভালো হলে কূটনীতিতে ভালো ফল আসবে। তাই যেকোনো উদ্যোগ ও পদক্ষেপের ক্ষেত্রে সমন্বয়ে জোর দিতে হবে। পরিবর্তিত বৈশ্বিক ব্যবস্থায় দেশগুলো প্রতিবেশীদের সঙ্গে বৈদেশিক নীতি প্রণয়নে কঠিন সময় পার করছে। সুতরাং বাংলাদেশকে সতর্কতার সঙ্গে এগোতে হবে।

বিস ‘পরিবর্তনশীল বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে প্রতিবেশীর সঙ্গে বাংলাদেশের বৈদেশিক সম্পর্ক জোরদার’ শীর্ষক ওই সেমিনারের আয়োজন করে।

সেমিনারে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম বলেন, বর্তমান প্রেক্ষাপটে বৈশ্বিক পরিস্থিতি প্রত্যাশার তুলনায় দ্রুত পরিবর্তিত হচ্ছে। তাই পরিবর্তনশীল সময়ের সঙ্গে খাপ খাইয়ে সম্পর্ক এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে সতর্ক থাকা জরুরি। তবে পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে প্রতিবেশী দেশসহ নির্দিষ্ট দেশ ও অঞ্চলের সঙ্গে সম্পর্কের ক্ষেত্রে পররাষ্ট্রনীতির মৌলিক আদর্শের সঙ্গে বাংলাদেশ কখনো আপস করবে না। ‘সবার সঙ্গের বন্ধুত্ব, কারও সঙ্গে বৈরিতা নয়’ এই মূলনীতির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে বাংলাদেশ আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা, সমৃদ্ধি এবং উন্নয়নের লক্ষ্যে প্রতিবেশীর সঙ্গে সম্পর্ক নিবিড় করার প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে।

শাহরিয়ার আলম বলেন, সংযুক্তিকে ট্রানজিটের নামে সস্তা দৃষ্টিকোণ থেকে দেখা হয়েছে। ১৫ বছর আগে ট্রানজিট ইস্যু নিয়ে বাংলাদেশে সস্তা রাজনীতি হয়েছে। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্যক্তিগতভাবে রাজনৈতিক ঝুঁকি নিয়ে সংযুক্তির বাস্তবায়ন করেছিলেন। এখন সবাই এর সুফল ভোগ করছেন।

প্রতিবেশী ভারতের সঙ্গে নিরাপত্তা সহযোগিতার উল্লেখ করে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, দুই নিকট প্রতিবেশীর এই সহযোগিতা শুধু বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যেই সীমিত থাকেনি। তা এ অঞ্চলে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টির চেষ্টা করে এমন যেকোনো পক্ষকে দমনে সহায়ক ভূমিকা রাখছে। ১৪ বছর ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ প্রতিবেশী হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পেরেছে।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘চলতি বছরের প্রথমার্ধে যৌথ নদী কমিশনের (জেআরসি) বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে বলে আমরা আশা করছি। হয়তো তা বছরের প্রথম তিন মাসের মধ্যেই হতে পারে। এ ব্যাপারে ভারতের আন্তরিকতা দেখা যাচ্ছে। পানিসংকট সমাধানে ভারত ছাড়াও চীন ও ভুটানের সঙ্গেও একযোগে কাজ করতে হবে।’

সেমিনারের সঞ্চালনা করতে গিয়ে সাবেক রাষ্ট্রদূত এবং গবেষণাপ্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ এন্টারপ্রাইজ ইনস্টিটিউটের প্রেসিডেন্ট এম হুমায়ুন কবীর বলেন, দুঃখজনক হলেও সত্যি, দক্ষিণ এশিয়া হচ্ছে একমাত্র অঞ্চল, যেখানে আঞ্চলিক কোনো সংগঠন নেই। ২৫ বছর পেরিয়ে গেলেও বিমসকটেক যথেষ্ট সক্রিয় নয়। নতুন ও পরিবর্তিত বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে নতুন একটি আঞ্চলিক সংগঠনের বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনায় নিতে হবে।

সেমিনারে আরও বক্তৃতা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের চেয়ারপারসন লাইলুফার ইয়াসমিন, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দক্ষিণ এশিয়া অনু বিভাগের মহাপরিচালক এ টি এম রকিবুল হক, বিসের গবেষণা পরিচালক মাহফুজ কবীর ও জ্যেষ্ঠ গবেষণা ফেলো এম আশিকুর রহমান।

সেমিনারে স্বাগত বক্তৃতা করেন বিসের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল শেখ পাশা হাবিব উদ্দিন।