প্রতিবেদনে বলা হয়, বায়ুদূষণের কারণে বছরে প্রাক্কলিত ক্ষতি জিডিপির প্রায় ৯ শতাংশ। এবং দেশের ৩২ শতাংশ মৃত্যু পরিবেশদূষণের সঙ্গে সম্পর্কিত; বিশেষ করে বায়ুদূষণ, নিরাপদ পানি, স্যানিটেশন ও স্বাস্থ্যবিধির ঘাটতি এবং সিসা দূষণ।

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বাংলাদেশের চারটি অঞ্চল বেশি ঝুঁকির মধ্যে আছে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়। চারটি অঞ্চল হচ্ছে বরেন্দ্র এলাকা, পার্বত্য চট্টগ্রাম, উপকূল ও হাওর এলাকা।

প্রতিবেদনে বলা হয়, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ২০৫০ সাল নাগাদ বাংলাদেশের ১ কোটি ৩০ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত হতে পারে। এ ছাড়া এ সময়ের মধ্যে কৃষি খাতে জিডিপির এক-তৃতীয়াংশ কমতে পারে। বাংলাদেশে জলবায়ুজনিত ক্ষয়ক্ষতি মোকাবিলায় বছরে বাংলাদেশের দরকার ১ হাজার ২৫০ কোটি ডলার।

বক্তারা বাংলাদেশের বাজেটে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলাকে অগ্রাধিকার, আন্তর্জাতিক তহবিল থেকে অর্থ সংগ্রহের চেষ্টা, কার্বন কর আরোপ এবং বেসরকারি খাতকে এ ক্ষেত্রে বিনিয়োগ বাড়ানোতে গুরুত্ব দেন। তাঁরা বলেন, এটা না হলে বাংলাদেশে জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে দরিদ্র মানুষ সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের তাপমাত্রা দেড় ডিগ্রি সেলসিয়াস ও বৃষ্টিপাত ৪ শতাংশ বাড়লে উপকূলে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা ২৭ সেন্টিমিটার বা বেশি বাড়তে পারে। এতে উপকূলে সম্পদহানি দ্বিগুণ হতে পারে, যা বছরে ৩০ কোটি ডলারের সমপরিমাণ।

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বাংলাদেশের চারটি অঞ্চল বেশি ঝুঁকির মধ্যে আছে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়। চারটি অঞ্চল হচ্ছে বরেন্দ্র এলাকা, পার্বত্য চট্টগ্রাম, উপকূল ও হাওর এলাকা। জেলা হিসেবে ধরলে হাওরের ময়মনসিংহ জেলার পশ্চিমাংশ, রংপুরের পূর্বাংশ এবং খুলনার দক্ষিণাংশ জলবায়ু পরিবর্তনের সবচেয়ে বেশি জলবায়ুর ঝুঁকিতে আছে। নিয়মিতভাবে প্রাকৃতিক দুর্যোগ হয়, এমন এলাকার স্থানীয় বাসিন্দাদের তাই এ ধরনের পরিস্থিতি মোকাবিলার সামর্থ্য বাড়াতে হবে।

বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়া বিভাগের ভাইস প্রেসিডেন্ট মার্টিন রেইজার বলেন, অভিযোজন ও দুর্যোগ ঝুঁকি ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ অগ্রণী ভূমিকা রেখেছে। কিন্তু জলবায়ু ঝুঁকি বাড়তে থাকায় অভিযোজন প্রচেষ্টা জোরদার করা অত্যাবশ্যক।