ইসির প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মো. ইব্রাহিম ফারুকের বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘনের একাধিকবার অভিযোগ করেছিলেন অপর প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী এস এম মহসীন। ওই বিষয়ে সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তা তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) চিঠি দেন। কিন্তু ওসি কোনো প্রতিবেদন দেননি। এ ছাড়া প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মো. ইব্রাহিম ফারুকের সমর্থক জোবায়দুল হক ওরফে রাসেল ২৩ জুলাই এক উঠান বৈঠকে বলেন, ‘ভোট হবে ইভিএমে, কে কোথায় ভোট দেবে তা কিন্তু আমাদের কাছে চলে আসবে’।

ইসির প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়েছে, এ বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম, বিভিন্ন গণমাধ্যম ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় প্রকাশিত হয়। বিষয়টি নির্বাচন কমিশনের নজরে এসেছে। এ প্রেক্ষাপটে ইসি নির্বাচন স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ ছাড়া ওই বিষয়টি বরিশালের আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তাকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য নির্বাচন কমিশন নির্দেশ দিয়েছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন