বর্তমানে বড় পর্দার টেলিভিশনগুলো ক্রেতাদের মধ্যে বিপুল চাহিদা তৈরি করেছে—এমনটাই মনে করেন বাটারফ্লাইয়ের প্রোডাক্ট ম্যানেজার মো. মাহফুজুল আলম। তিনি বলেন, ‘বড় পর্দাসহ হাই রেজল্যুশন ও অত্যাধুনিক ফিচারের টিভির চাহিদা এখন বেশি। আসন্ন বিশ্বকাপ ফুটবল উপভোগের জন্য দেশের বাজারে বড় পর্দার টিভির চাহিদা বাড়ছে।’

বড় পর্দার এই চাহিদার কারণ হলো শ্বাসরুদ্ধকর ও উত্তেজনায় ঠাসা খেলা কিংবা সিনেমা উপভোগের সময় দর্শক টিভিতে ঘটতে থাকা বিষয়টির সঙ্গে পুরোপুরি মিশে যেতে পারেন। মাঠে গিয়ে খেলা উপভোগ করা হলো না, বাসায় সেই খেলা দেখে কিছুটা সাধ তো মেটে! মো. মাহফুজুল আলম আরও বলেন, ‘বাসার আকৃতি বিবেচনায় বড় পর্দার টেলিভিশন ঠিক মাঠে বসে খেলা দেখার অনুভূতিই দেবে দর্শককে। মনে হবে দর্শক খেলার মাঠে বসে টান টান উত্তেজনাপূর্ণ কোনো ফুটবল ম্যাচ বা অন্য কোনো খেলা উপভোগ করছেন। আর মনের মতো সিনেমা হলে তো কথাই নেই।’

বড় পর্দার টেলিভিশনের কথা এলেই সবার আগে চলে আসে রেজল্যুশনের বিষয়টি। বর্তমানে বড় পর্দার টেলিভিশনে তিন ধরনের রেজল্যুশন রয়েছে—১০৮০পি, ফোরকে ও এইটকে। অনেক টিভি কোম্পানি আল্ট্রা-হাই রেজল্যুশনের মতো টিভিগুলোর স্ক্রিনে ৩৩ মিলিয়ন পিক্সেল ব্যবহার করেছে। এ ধরনের হাই রেজল্যুশনের কারণে বড় পর্দার টিভি দেখতে দর্শকরা স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন।

বড় পর্দার টিভি দেখার সময় বাসার ভেতরে অন্য রকম এক আবহ তৈরি হয়। বর্তমানে অনেক টেলিভিশন ব্র্যান্ড ফোরকে ইউএইচডি প্রযুক্তি ব্যবহার করছে; এর ফলে পর্দার আকারের কারণে একজন দর্শক টেলিভিশনের পর্দা থেকে যতটা দূরত্বেই বসে থাকুক না কেন, তিনি স্পষ্ট শব্দ ও গুণগত মানের ছবি উপভোগ করতে পারবেন।

একটা সময় বড় টিভি কিনতে গেলে মানুষের ভাবতে হতো বাসায় রাখার জায়গা নিয়ে। বর্তমান সময়ের স্মার্ট এলইডি টিভিগুলো স্থাপন করার ক্ষেত্রে পুরোনো টিভিগুলোর চেয়ে কম জায়গার প্রয়োজন হয়। এখন আধুনিক মডেলের টিভিগুলো পাতলা ও হালকা। ফলে সহজেই দেয়ালে স্থাপন করা যায়। তাতে টিভি রাখার জন্য বাসায় বাড়তি জায়গার প্রয়োজন হয় না। অনেক দিন ধরে যাঁরা ভাবছিলেন বড় পর্দার টিভি কিনবেন, বিশ্বকাপের এই সময়টা তাঁদের জন্য একদম উপযুক্ত সময়। পরিবারের সবাই মিলে একসঙ্গে খেলা তো উপভোগ করতে পারবেনই, একই সঙ্গে বছরজুড়ে পরিবারের সদস্যদের সিনেমা দেখার একটা মনোরম পরিবেশ তৈরি হবে।

বড় পর্দায় নিয়মিত সিনেমা দেখে অভ্যস্ত রাজধানীর ইস্কাটনের এমিলিয়া খানম। তিনি বলেন, ‘এটা আসলে অন্যরকম একটা মজা। আমি বড় পর্দার টিভি কিনেছি ছয় মাস হলো। এখন সময় পেলেই পরিবারের সবাই মিলে প্রিয় সিনেমাগুলো উপভোগ করি। মনে হয় যেন সিনেমা হলে বসেই সিনেমা দেখছি। পারিবারিক বিনোদনের সময়টাকে এমন রাঙিয়ে তুলতে বড় পর্দার টিভি অনন্য।’