গতকাল সোমবার দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন আদানি গ্রুপের চেয়ারম্যান গৌতম আদানি। এরপর তাঁর ভেরিফায়েড টুইটারে এক টুইটে প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করে তিনি বলেন, ‘চলতি বছরের ১৬ ডিসেম্বরের মধ্যে ১ হাজার ৬০০ মেগাওয়াট গোড্ডা বিদ্যুৎ প্রকল্প এবং বাংলাদেশের সঙ্গে বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন চালু করার বিষয়ে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

চুক্তি অনুসারে আগামী ২৫ বছর এ কেন্দ্র থেকে ১ হাজার ৪৯৬ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কিনে নেবে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি)। সর্বশেষ আগস্ট পর্যন্ত পিডিবির অগ্রগতি প্রতিবেদন বলছে, এ বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে ৭৪৮ মেগাওয়াট এবং আগামী বছরে আরও ৭৪৮ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আসার কথা রয়েছে।

তবে সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, বিদ্যুৎ সরবরাহের সঞ্চালন লাইন তৈরি হলেও বাংলাদেশের দুই প্রান্তের উপকেন্দ্রের কাজ শেষ হয়নি। বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা শুরু করার জন্য আপাতত অস্থায়ী উপকেন্দ্রের মাধ্যমে গত ১৮ আগস্ট ওই কেন্দ্রে বাংলাদেশ থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু হয়েছে। তাদের কেন্দ্রটি পুরোপুরি তৈরি হলে পরীক্ষামূলকভাবে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু করবে। প্রথম ৫০ মেগাওয়াট করে সরবরাহ করবে। এরপর ধাপে ধাপে পুরো সক্ষমতা যাচাই শেষে বাণিজ্যিকভাবে সরবরাহ শুরু হবে।

দেশের একমাত্র বিদ্যুৎ সঞ্চালন কোম্পানি পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ (পিজিসিবি) সূত্র বলছে, ভারতীয় আদানির কেন্দ্রের বিদ্যুৎ আনতে দিনাজপুরের রোহনপুর সীমান্ত এলাকা থেকে একটি সঞ্চালন লাইন আসছে বগুড়া পর্যন্ত। লাইন টানার কাজ শেষ হয়েছে। তবে দুই পাশের উপকেন্দ্র এখনো তৈরি হয়নি। এটির কাজ করছে চীনের ঠিকাদার সাংহাই ইলেকট্রিক কোম্পানি। দেশটিতে লকডাউনের কারণে তাদের আসতে দেরি হয়। অক্টোবরের মধ্যে সব যন্ত্রপাতি দেশে চলে আসবে। কাজ শেষ করতে ডিসেম্বর লেগে যেতে পারে।