এক রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে আজ সোমবার বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ এ আদেশ দেন।

‘কক্সবাজার কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট অফিস: ভ্যাটের হাজার কোটি টাকা মিলেমিশে লোপাট’ শিরোনামে ১৬ নভেম্বর একটি জাতীয় দৈনিকে প্রতিবেদন ছাপা হয়। প্রতিবেদন যুক্ত করে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইশরাত জাহান ও শামসুদ্দোহা তালুকদার আজ রিটটি করেন।

প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, হোটেল-রেস্তোরাঁগুলো মাসিক চুক্তি অনুযায়ী ভ্যাট কর্মকর্তাদের ঘুষ দিয়ে নামমাত্র ভ্যাট প্রদান করে যাচ্ছে। দুদকের চট্টগ্রাম সমন্বিত জেলা কার্যালয়-২-এর অনুসন্ধানে উঠে এসেছে, কক্সবাজারে অনেক হোটেল-রেস্তোরাঁ ভ্যাট পরিশোধ করছে না।

প্রকাশিত প্রতিবেদনে ভ্যাট আদায়ে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ সত্য না মিথ্যা, সে বিষয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান ও কক্সবাজারের জেলা প্রশাসককে আগামী ১৫ জানুয়ারির মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

আদালতে রিটের পক্ষে আইনজীবী ইশরাত জাহান নিজেই শুনানি করেন। দুদকের পক্ষে আইনজীবী খুরশীদ আলম খান এবং রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন শুনানিতে ছিলেন।