একজন যাত্রী শুল্ককর পরিশোধ করে বৈধভাবে দুটি স্বর্ণবার আনতে পারেন। প্রবাসীদের সুবিধা দিতে সরকার ব্যাগেজ রুলে এই নিয়ম করেছে। এর বেশি স্বর্ণবার আনার সুযোগ নেই। ওই যাত্রী চারটি স্বর্ণবার আনায় চোরাচালান হিসেবে গণ্য হবে বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা জানান, সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে আসা মো. রফিকুল ইসলাম নামে ওই যাত্রীর ব্যাগ তল্লাশি করে স্বর্ণবার ছাড়াও আরও বেশ কিছু পণ্য জব্দ করেন কর্মকর্তারা। জব্দ তালিকা অনুযায়ী ওই যাত্রীর কাছে মোট ৩৮ লাখ ৬৫ হাজার টাকার পণ্য পাওয়া যায়। এর মধ্যে ৪৬৬ গ্রাম ওজনের চারটি স্বর্ণবার ও পাঁচটি চুড়ির মূল্য ৩৭ লাখ টাকা। এ ছাড়া দুটি মোবাইল, কসমেটিকস ও খাদ্যপণ্যও জব্দ করা হয়েছে।

শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের উপপরিচালক এ কে এম সুলতান মাহমুদ প্রথম আলোকে জানান, বিমানবন্দরে স্বর্ণের চোরাচালান হতে পারে-মহাপরিচালকের কাছ থেকে এমন খবর পেয়ে সকালে বিমানবন্দরে নজরদারি বাড়ানো হয়। এই ঘটনায় পতেঙ্গা থানায় মামলা হয়েছে। আটক যাত্রীকে থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন