বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দুই সপ্তাহের বেশি সময় ধরে অর্ধেক ভাড়ার দাবিতে আন্দোলন করছেন শিক্ষার্থীরা। প্রথমে বিআরটিসির এবং পরে বেসরকারি পরিবহনমালিকেরা রাজধানী ঢাকায় শিক্ষার্থীদের অর্ধেক ভাড়া নেওয়ার ঘোষণা দেন। তবে এই ঘোষণা বাস্তবায়ন কীভাবে করা হবে এবং কেউ অমান্য করলে শাস্তি কী হবে—বিষয়টি পরিষ্কার করেনি কেউ। পরিবহন খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) থেকেও এই বিষয়ে কোনো নির্দেশনা জারি করা হয়নি।

default-image

গতকাল সকাল থেকে প্রথম আলোর তিনজন প্রতিবেদক রাজধানীর বিভিন্ন গণপরিবহনে অর্ধেক ভাড়ায় শিক্ষার্থীরা যাতায়াত করতে পারছেন কি না, তা খোঁজ নিতে বিভিন্ন পথে বাসে চড়েন। তাঁরা দেখেন, বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই বাসে অর্ধেক ভাড়া দিতে গিয়ে শিক্ষার্থীরা কটুকথার শিকার হয়েছেন। বাস থেকে নামিয়ে দেওয়ার মতো ঘটনাও ঘটেছে দু-এক জায়গায়। এমনকি বিআরটিসির একটি বাসে ৪০ টাকার অর্ধেক হিসেবে এক শিক্ষার্থীর কাছ থেকে ৩০ টাকা নিতে দেখা গেছে।

বিআরটিএর চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদার প্রথম আলোকে বলেন, পরিবহনমালিকেরা ঘোষণা দেওয়ার পর বিআরটিএসহ সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে এই সিদ্ধান্ত জানিয়ে চিঠিও দেওয়া হয়েছে। ফলে আলাদা কোনো প্রজ্ঞাপনের দরকার নেই। শিক্ষার্থীদের অর্ধেক ভাড়ার বিষয়টি এখন আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের জন্য অর্ধেক ভাড়া—বিষয়টি পরিবহনশ্রমিকদের মৌখিকভাবে জানানোর পাশাপাশি বাসের ভেতর লিখে রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে মালিকদের। এরপরও কেউ অমান্য করলে বিআরটিএ ব্যবস্থা নেবে।

অর্ধেক ভাড়া কার্যকরসহ নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনে থাকা শিক্ষার্থীরা গতকালও রাজধানীর মতিঝিল ও রামপুরায় কর্মসূচি পালন করেছেন। এসব কর্মসূচিতে ১১ দফা পেশ করেছেন তাঁরা। এর মধ্যে সারা দেশে শিক্ষার্থীদের অর্ধেক ভাড়া কার্যকর করা এবং তা সরকারি প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক প্রকাশের দাবি করা হয়েছে।

সরকার ও পরিবহন সূত্রগুলো বলছে, শিক্ষার্থীদের আন্দোলন আরও ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে সরকারের নীতিনির্ধারকেরা আশঙ্কা করছেন। যত দ্রুত সম্ভব এই আন্দোলনের সমাপ্তি চায় সরকার। এ জন্য শিক্ষার্থীদের দাবিদাওয়ার বিষয়ে আগামী সপ্তাহের মধ্যে সুরাহা করার তাগিদ রয়েছে। এই পরিস্থিতিতে সরকারের পক্ষ থেকে চট্টগ্রাম মহানগরেও শিক্ষার্থীদের জন্য অর্ধেক ভাড়া কার্যকরের অনুরোধ করা হয়েছে পরিবহনমালিক-শ্রমিকদের। আগামী রোববার চট্টগ্রামেও অর্ধেক ভাড়া কার্যকরের ঘোষণা দেওয়া হতে পারে বলে পরিবহন সূত্র জানিয়েছে।

default-image

জানতে চাইলে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ প্রথম আলোকে বলেন, বেশির ভাগ পরিবহনেই অর্ধেক ভাড়া নেওয়া হচ্ছে। দু-একটি পরিবহনে শ্রমিকেরা হয়তো বার্তা পুরোপুরি পাননি। দু-এক দিনের মধ্যে সব ঠিক হয়ে যাবে। অর্ধেক ভাড়া নেওয়ার সিদ্ধান্ত জানিয়ে সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয়, বিআরটিএ, পুলিশ ও সব পরিবহনমালিককে চিঠি দেওয়া হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

চট্টগ্রামে শিক্ষার্থীদের অর্ধেক ভাড়ার বিষয়ে খন্দকার এনায়েত উল্যাহ বলেন, রোববার এই বিষয়ে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হবে।

অর্ধেক ভাড়া এড়াতে যত কৌশল

নাসিমুল হাসান তাঁর স্কুলপড়ুয়া শিশুসন্তানকে নিয়ে আরশীনগর থেকে জিগাতলায় যাচ্ছিলেন। শিশুর পরনে স্কুলের পোশাক। এ পথের ভাড়া জনপ্রতি ২০ টাকা। নাসিমুল ২০ টাকার দুটি নোট বাড়িয়ে দিতেই তা নিয়ে চলে যাচ্ছিলেন চালকের সহকারী।

শিশুর অর্ধেক ভাড়া কেন রাখা হচ্ছে না, নাসিমুলের এমন প্রশ্নে পাঁচ টাকা ফেরত দেন চালকের সহকারী। কিছুক্ষণ পর নাসিমুল বলেন, ‘১৫ টাকা কেন রাখলেন, ১০ টাকা রাখেন।’ চালকের সহকারী পাঁচ টাকা ফেরত দিলেন বটে, সঙ্গে দু-এক কথা শুনিয়েও দিলেন। চালকের সহকারী বলেন, ‘অল্প ভাড়ায়ও অর্ধেক রাখতে হয়? এই নেন পাঁচ টাকা।’

পরিস্থান পরিবহনের একটি বাসে মোহাম্মদপুর থেকে মিরপুর-১-এ যাচ্ছিল মনিপুর উচ্চবিদ্যালয় অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী আবু বক্কর। বাসে টাঙানো তালিকা অনুসারে এই দূরত্বের ভাড়া ১৮ টাকা। কিন্তু আবু বক্কর ২০ টাকার নোট দিলে চালকের সহকারী মো. শামীম আরও পাঁচ টাকা চান। তাঁর দাবি, ওয়ে বিলে (যাত্রী হিসাব) ভাড়া ২৫ টাকা। অথচ পরিবহন কোম্পানির ব্যবস্থাপক পথে ওয়ে বিলে যাত্রীর সংখ্যা লেখার সময় আবু বক্কর যে শিক্ষার্থী, তা জানানো হয়েছিল। কিন্তু ভাড়া নেওয়ার সময় চালকের সহকারী দাবি করেন, আবু বক্করের শিক্ষার্থী হিসেবে পরিচয় দেওয়ার কথা তিনি শুনতে পাননি। তারপর মোট ১৫ টাকা ভাড়া রাখেন।

সেফটি পরিবহনের বাসে চড়ে শেওড়াপাড়া থেকে সায়েন্স ল্যাবরেটরিতে আসা সিটি কলেজের প্রথম বর্ষের এক ছাত্রের অভিজ্ঞতাও একই। সে প্রথম আলোকে জানায়, প্রথমে পুরো ২০ টাকা ভাড়াই আদায় করেছিলেন চালকের সহকারী। পরে মনে করিয়ে দিতে ১০ টাকা ফেরত দিয়েছেন। সায়েন্স ল্যাবরেটরি এলাকায় কোচিং করতে আসা আরেক ছাত্র আয়াত হোসেন বলে, খুচরা নেই, এই অজুহাতে তার কাছ থেকে পুরো ভাড়া রাখা হয়েছে।

default-image

নারায়ণগঞ্জ থেকে সাভার পথে চলাচল করে ঠিকানা পরিবহন। গতকাল সকালে এই বাসে নারায়ণগঞ্জ থেকে উঠেছিলেন ইডেন কলেজের বেশ কয়েকজন ছাত্রী। তাঁরা জানান, আজ তাঁরা কিছুটা কম ভাড়ায় আসতে পেরেছেন। বাসে ৩০ টাকার পরিবর্তে ২০ টাকা লেগেছে।

মিরপুর ১০ থেকে শিকড় পরিবহনে যাত্রাবাড়ীতে যাচ্ছিলেন সিটি বিজনেস কলেজের শিক্ষার্থী প্রিয়া শীল। তিনি জানান, হাফ ভাড়া নিলে হতো ১৫ টাকা। কিন্তু নেওয়া হয়েছে ২০ টাকা।

বিআরটিসির বাসেও অর্ধেক মানা হয়নি

সাভারের টঙ্গী বাজার থেকে রাজধানীর কাকরাইলে যাচ্ছিলেন উত্তরা ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের শিক্ষার্থী শান্ত সূত্রধর। উঠেছেন বিআরটিসি বাসে। রাজধানীর ফার্মগেটে ওই বাসে তাঁর সঙ্গে কথা হয়। তিনি বলেন, ‘এমনিতে ভাড়া ৪০ টাকা। আমি ছাত্র বলে আমার কাছ থেকে ৩০ টাকা রেখেছে।’ কেন বাড়তি ১০ টাকা রাখা হলো, জানতে চাইলে চালকের সহকারী তাঁকে বলেছেন, ‘এটাই হাফ ভাড়া।’

ঢাকা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ছাত্র মো. সিয়াম ফার্মগেট থেকে শাহবাগে যাচ্ছিলেন। বিআরটিসি বাসে ওঠার সময় সিয়ামকে আগেই বাসচালকের সহকারী বলেন, ‘১০ টাকার নিচে ভাড়া নাই।’ বাসে বসে সিয়াম প্রথম আলোকে বলেন, ‘পাঁচ টাকা ভাংতি নিয়ে বাসে চলি। তা না হলে বেশি ভাড়া নেয়।’

default-image

বিআরটিসির চেয়ারম্যান মো. তাজুল ইসলাম প্রথম আলোকে জানান, অর্ধেক ভাড়া কার্যকর হয়েছে কি না, তা দেখার জন্য বিআরটিসির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের চারটি দল মাঠে ছিল। ডিপো ব্যবস্থাপকেরাও মাঠে থেকে তদারক করেছেন। বাড়তি ভাড়া নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া যায়নি। এরপরও যদি কেউ বাসের নম্বর, রুট কিংবা সুনির্দিষ্ট তথ্য দিয়ে অভিযোগ করে, তাহলে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি উদাহরণ দিয়ে বলেন, কক্সবাজার থেকে ঢাকা সবচেয়ে বেশি দূরের যাত্রা। সেখান থেকেও কোনো শিক্ষার্থী ঢাকায় এলে তাঁর কাছ থেকে অর্ধেক ভাড়া নেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। কেউ বেশি নেওয়ার প্রমাণ মিললে সরাসরি বরখাস্ত করা হবে।

বাস থেকে নামিয়ে দেওয়ার অভিযোগ

ঢাকা কমার্স কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির একাধিক শিক্ষার্থী জানান, অর্ধেক ভাড়া নিয়ে বচসার পর তাঁদের বাস থেকে নামিয়ে দেওয়া হয়েছে। এক শিক্ষার্থী বলেন, কিরণমালা পরিবহনে গাজীপুরের কাশিমপুর থেকে মিরপুর ১ পর্যন্ত তাঁর কাছ থেকে ৪৫ টাকা ভাড়া নেওয়া হয়েছে। অর্ধেক ভাড়ার কথা বললে তর্ক হয়। মিরপুর ১০-এর সনি সিনেমা হল মোড়ে এসে তাঁদের বাস থেকে নামিয়ে দেওয়া হয়।

কিরণমালা পরিবহনের পরিচালকদের একজন প্রথম আলোকে বলেন, কাশিমপুর থেকে তালিকায় উল্লেখিত ভাড়া ৬৯ টাকা। বাস থেকে নামিয়ে দেওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, অনেক সময় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ঝামেলা এড়াতে নেমে যেতে বলা হয়। তবে বিষয়টা দেখবেন বলে জানান তিনি।

‘এক দেশে দুই নীতি মানি না’

গাজীপুর প্রতিনিধি জানান, শুধু ঢাকা নয়, সারা দেশের সব গণপরিবহনে শিক্ষার্থীদের অর্ধেক ভাড়ার দাবি জানিয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে গতকাল মানববন্ধন করেন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। পাশাপাশি নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতের দাবিও জানান তাঁরা। গতকাল সকালে গাজীপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে ‘এক দেশে দুই নীতি মানি না, মানব না’ স্লোগানে মানববন্ধন করেন ওই শিক্ষার্থীরা।

রাজবাড়ী প্রতিনিধি জানান, একই দাবিতে রাজবাড়ী সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের সামনে গতকাল সকালে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ হয়েছে। সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে আয়োজিত কর্মসূচিতে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা অংশ নেন।

নিরাপদ সড়ক চাইয়ের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন প্রথম আলোকে বলেন, প্রথম কথা হচ্ছে, শিক্ষার্থীদের দাবি ছিল সারা দেশে অর্ধেক ভাড়া করা। ঢাকার মতো অর্ধেক ভাড়া সারা দেশেই কার্যকর করা উচিত। আর তা বাস্তবায়িত হচ্ছে কি না, তা দেখার জন্য বিআরটিএ, পুলিশ ও পরিবহনমালিক-শ্রমিক সংগঠনের যৌথভাবে পর্যবেক্ষণ করতে হবে। এখন শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে আছেন। তাঁরা ঘরে ফিরে গেলে যাতে অর্ধেক ভাড়ার বিষয়টি হারিয়ে না যায়, তা নিশ্চিত করতে হবে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন