ডিএমপি কমিশনার শফিকুল ইসলাম (বাঁ থেকে দ্বিতীয়) থানা কমপ্লেক্সে নারী নির্যাতন প্রতিরোধে কুইক রেসপন্স এবং হটলাইন নম্বর চালু করেন
ডিএমপি কমিশনার শফিকুল ইসলাম (বাঁ থেকে দ্বিতীয়) থানা কমপ্লেক্সে নারী নির্যাতন প্রতিরোধে কুইক রেসপন্স এবং হটলাইন নম্বর চালু করেনছবি: সংগৃহীত

সাংসদ হাজি মো. সেলিমের ছেলে কাউন্সিলর ইরফান সেলিমের বিরুদ্ধে নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধরের অভিযোগে করা মামলাটির তদন্ত পুলিশ প্রভাবমুক্ত হয়ে করছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশ পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম। এখানে প্রভাব খাটানোর কোনো সুযোগ নেই বলে জানান তিনি।

আজ মঙ্গলবার তেজগাঁও থানা কমপ্লেক্সে ভিকটিম রেসপন্স ও হটলাইন নম্বর উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ডিএমপি কমিশনার এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধরের মামলাটিতে কারও প্রভাব থাকার কোনো  প্রশ্ন নেই। চাইলে কেউ প্রভাব খাটাতে পারবে না। দ্রুততম সময়ে পুলিশ এই মামলার তদন্ত করবে ও অভিযোগপত্র জমা দেবে।

বিজ্ঞাপন
default-image

মামলাটি গুরুত্ব সহকারে নেওয়া হয়েছে উল্লেখ করে শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা মামলাটি গুরুত্বসহকারে নিয়েছি। সচরাচর হত্যা মামলার মতো ঘটনা থাকলে ঘটনাস্থল উপপুলিশ কমিশনার পরিদর্শন করেন। এই ঘটনার পরপরই রমনা বিভাগের ডিসি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছেন।’

গত রোববার রাতে স্ত্রীকে নিয়ে মোটরসাইকেলে বাসায় ফিরছিলেন নৌবাহিনীর কর্মকর্তা লে. ওয়াসিফ আহম্মেদ খান। সাংসদের স্টিকারযুক্ত একটি গাড়ি তাঁর মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দেয়। ওই গাড়িতে ছিলেন হাজি সেলিমের ছেলে ইরফান ও তাঁর লোকজন। ওয়াসিফ নিজের পরিচয় দিয়ে গাড়িটিকে থামতে ইশারা করেন এবং কথা বলতে চান। তখন তাঁকে মারধর করে রক্তাক্ত করেন ইরফান ও তাঁর লোকজন।

গতকাল সোমবার সকালে নৌবাহিনীর ওই কর্মকর্তা ইরফান ও তাঁর তিন সহযোগী হাজি সেলিমের প্রটোকল অফিসার আবু বকর দিপু, ইরফানের দেহরক্ষী মোহাম্মদ জাহিদ এবং গাড়িচালক মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে রাজধানীর ধানমন্ডি থানায় মামলা করেন।

ইরফান সেলিম ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর। তাঁর শ্বশুর একরামুল করিম চৌধুরী নোয়াখালীর সংসদ সদস্য।

নারী নির্যাতন প্রতিরোধে হটলাইন নম্বর চালু

আজ মঙ্গলবার দুপুরে ডিএমপি কমিশনার শফিকুল ইসলাম তেজগাঁও থানা কমপ্লেক্সে নারী নির্যাতন প্রতিরোধে কুইক রেসপন্স এবং হটলাইন নম্বর চালু করেন। এখন থেকে ০১৩২০-০৪২০৫৫ এই নম্বরে নির্যাতনের শিকার যেকোনো ভিকটিম ২৪ ঘণ্টা তাঁর অভিযোগ জানাতে পারবেন। অভিযোগ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ডিএমপির রেসপন্স টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে তাঁকে সহযোগিতা করবে।

ডিএমপির এই শীর্ষ কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা চাই না কোনো নারী অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার সম্মুখীন হোক। তাঁর কথা শোনার জন্যই আমাদের এই প্রচেষ্টা। আমরা টিমটাকে এমনভাবে তৈরি করব যে কোনো মেয়ে বা বোন তাঁর খারাপ লাগার জায়গাটা আমাদের সঙ্গে শেয়ার করতে পারেন। এখানে সার্বক্ষণিক একটা গাড়ি থাকবে। পরবর্তী সময়ে আরও গাড়ি যোগ হবে। ৯৯৯-এর মতো যেনও আমাদের একটা শক্ত টিম হয় বা রেসপন্স করতে পারে, সেই আশা নিয়ে কাজ করব।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0