কবির হোসেনের স্বজন দুলাল হাওলাদার প্রথম আলোকে বলেন, গতকাল সকালে আহত অবস্থায় তাঁকে (কবির হোসেন) প্রথমে মিটফোর্ড হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর তাঁকে জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠানে (নিটোর) আনা হয়। এখানে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে তাঁর একটি পা কেটে বাদ দেন চিকিৎসকেরা।

দুলাল হাওলাদার অভিযোগ করে বলেন, ‘ঈদের ছুটি থাকায় হাসপাতালে চিকিৎসক ও নার্সের স্বল্পতা রয়েছে।’ দুপুর ১২টার দিকে এ প্রতিবেদন লেখার সময় কবির হোসেনকে বেসরকারি একটি হাসপাতালে নেওয়ার প্রস্তুতি চলছিল।

এদিকে পায়ে আঘাত পাওয়া আরেক যাত্রী মো. শাহজালালকেও চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে নিটোরে। মুঠোফোনে প্রথম আলোকে তিনি বলেন, যাত্রীদের হুড়োহুড়ির মধ্যে পড়ে এ ঘটনা ঘটেছে। গতকাল রাতে পায়ের অস্ত্রোপচার করা হয়েছে। তবে পায়ের আঘাত গুরুতর নয় বলে চিকিৎসকেরা তাঁকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত হাসপাতালে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন। এরপর বাড়িতে রেখে চিকিৎসা করাতে হবে। তাঁর পরিবারের এবারের ঈদ হাসপাতালেই কাটবে বলে আক্ষেপ করেন শাহজালাল। তবে তিনি মনে করেন, বেঁচে থাকলে অনেক ঈদ করা যাবে। শাহজালাল একটি ব্যাটারি প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানে ডেলিভারিম্যানের চাকরি করেন।

default-image

গতকাল সকালে পটুয়াখালীগামী অনেক যাত্রী ঘাটে লঞ্চের জন্য অপেক্ষা করছিলেন। সকাল সাড়ে সাতটার দিকে এই নৌপথের পূবালী-১২ লঞ্চটি ঘাটে ভিড়তে শুরু করলে এতে ওঠার জন্য যাত্রীদের মধ্যে হুড়োহুড়ি লেগে যায়। এ সময় লঞ্চ ও পন্টুনের মধ্যে পা আটকে যায় শাহজালাল ও কবিরের। পরে তাঁদের উদ্ধার করে মিটফোর্ড হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এমভি পূবালী-১২ লঞ্চের স্বত্বাধিকারী আজগর আলী প্রথম আলোকে বলেছেন, তিনি দুই যাত্রীর চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছেন।

নৌ দুর্ঘটনায় যাত্রীদের ক্ষতিপূরণ দিতে সরকারের একটি নৌ দুর্যোগ তহবিল ট্রাস্টি বোর্ড রয়েছে। আহত যাত্রীরা এই তহবিল থেকে কোনো ক্ষতিপূরণ পাবেন কি না বা সরকারের পক্ষ থেকে যাত্রীদের চিকিৎসা নিশ্চিত করতে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে কি না, তা বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) চেয়ারম্যান কমোডর গোলাম সাদেকের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘সমস্ত চিকিৎসার দায়িত্ব লঞ্চমালিক নিয়েছেন। আমরা অবশ্যই প্রয়োজনীয় সাহায্য করব।’

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন