বিজ্ঞাপন

তিনি জানান, মা ছাগলটি দুধ না দেওয়ার কারণে তিনি প্রায়ই এটিকে দুধ খাইয়ে থাকেন। বাসস্ট্যান্ড ঘুরে দেখা যায়, এমন আরও ছাগলছানা দৌড়াদৌড়ি করছে। ছাগল ছাড়াও কুকুরের বিচরণও চোখে পড়ে। কুকুরগুলোও আছে খাদ্যসংকটে। বাসস্ট্যান্ডে একটি খাবারের উচ্ছিষ্ট নিয়ে দুটি কুকুর কাড়াকাড়ি করছিল। এ সময় বাচ্চা একটি কুকুরও দখলের চেষ্টা করছিল।

default-image

লকডাউনে দূরপাল্লার বাস চলছে না। বাসসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন শ্রমিক তাই কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। স্বাভাবিক সময়ের মতো মানুষের পদচারণ তাই নেই এখানে। যাত্রীদের আনাগোনা নেই, হকারদের নেই দৌরাত্ম্য। বাসস্ট্যান্ড এলাকা রীতিমতো নীরব।

default-image
default-image

করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া রোধে গত ৫ এপ্রিল থেকে দূরপাল্লার যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। এরপর থেকে বাসস্ট্যান্ডের ভেতরে সারবেঁধে বাসগুলো দাঁড়িয়ে আছে। আর বাসসংশ্লিষ্ট কিছু শ্রমিক এখানে বসবাস করছেন। কুকুর, ছাগলগুলো শ্রমিকদের দেওয়া খাবারে কোনোরকমে বেঁচে আছে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন