বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শফিউল্লাহর কর্মচারী মাহবুব আলম প্রথম আলোকে বলেন, ইফতার শেষে শফিউল্লাহ স্থানীয় মসজিদ থেকে নামাজ পড়ে দোকানে ফেরার সময় খাজা রেস্তোরাঁ ভবনের ষষ্ঠতলার কার্নিশ থেকে ইট ধসে তাঁর মাথায় পড়ে। এ সময় রেস্তোরাঁর কর্মচারী এনামুল হকের (৫০) মাথায়ও ইট পড়ে। রক্তাক্ত অবস্থায় দুজনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখান থেকে চিকিৎসা দেওয়ার পর শফিউল্লাহকে উন্নত চিকিৎসার জন্য অন্য একটি হাসপাতালে নেওয়া হয়। আর এনামুলকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া প্রথম আলোকে বলেন, রাত সাড়ে ১০টার দিকে শফিউল্লাহকে আবার এই হাসপাতালের জরুরি বিভাগে আনা হয়। তখন কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন