বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

আজ সকাল ১০টার পর ঢাকা কলেজে গিয়ে দেখা যায়, ছাত্রাবাসগুলো খোলা রয়েছে। ছাত্রাবাসের ভেতরে ছাত্ররা অবস্থান করছেন। তবে ছাত্রাবাস এলাকায় ‘উত্তাপ’ নেই; বরং বিরাজ করছে নীরবতা। ঢাকা কলেজের এক আবাসিক ছাত্র প্রথম আলোকে বলেন, তাঁরা ছাত্রাবাস ছাড়বেন না।

কলেজটির ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ (উপাধ্যক্ষ) এ টি এম মইনুল হোসেন আজ প্রথম আলোকে বলেন, ‘কলেজের ছাত্রাবাস বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এই সিদ্ধান্তের কথা আমরা ছাত্রদের জানিয়ে দিয়েছি। কিন্তু ছাত্ররা ছাত্রাবাস ছেড়ে যেতে চাইছেন না। পাশাপাশি তাঁরা হামলাকারীদের বিচার দাবি করছেন। এসব বিষয় আমরা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত।’

সংঘর্ষের ঘটনায় কলেজ কর্তৃপক্ষ কী পদক্ষেপ নিয়েছে, জানতে চাইলে মইনুল হোসেন বলেন, সংঘর্ষের ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোনো তদন্ত কমিটি, প্রশাসনিক পদক্ষেপ বা আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। পরে আলোচনা করে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

default-image

নিউমার্কেট এলাকায় গত সোমবার রাতের পর গতকাল দিনভর সংঘর্ষ হয়। ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে নিউমার্কেট এলাকার দোকানমালিক-কর্মী-হকারদের এই সংঘর্ষের মধ্যে পড়ে আহত নাহিদ হোসেন (২০) নামের এক পথচারী গতকাল রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। সংঘর্ষে অনেক আহত হয়েছেন। দফায় দফায় সংঘর্ষের পর গতকাল রাত সাড়ে ১০টার পর ছাত্র, দোকানমালিক-কর্মী-হকাররা সড়ক থেকে সরে যান।

নিউমার্কেট এলাকার সড়ক আজ সকাল থেকে শান্ত দেখা গেছে। সড়কে বিবদমান কোনো পক্ষের উপস্থিতি দেখা যায়নি। নীলক্ষেত-নিউমার্কেট এলাকার সড়কে যানচলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। এলাকায় বিপুলসংখ্যক পুলিশ রয়েছে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন