অভিযান পরিচালনাকারী ডিবির রমনা অঞ্চলের সহকারী কমিশনার নাজিয়া ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, প্রতারকেরা দু একটি তক্ষক দেখিয়ে বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিতেন। কিন্তু ওই তক্ষক কারও কাছে বিক্রি করতেন না। তাঁদের বিরুদ্ধে উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলা হয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, চক্রের হোতা সোয়েম আহম্মেদ ওরফে সোহেল (৩৯), এনামুল হক (২৮), হোসেন আলী (২৪), মিজানুর রহমান (৩০) ও মামুন মিয়া (৩৮)। এ সময় তাঁদের কাছ থেকে একটি গামছা, একটি প্লাস্টিকের লাঠি, নাইলনের রশি, ১টি ওয়াকিটকি ও ১টি এন্টেনাযুক্ত ফোন জব্দ করা হয়।

গোয়েন্দা কর্মকর্তা হাফিজ আক্তার বলেন, গ্রেপ্তারকৃতরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বলেছেন, গাজীপুরের পুবাইলের রেইলগেইট বাঁধন সড়কে কথিত আন্তর্জাতিক মানবাধিকার গোয়েন্দা সংবাদ সোসাইটি নামে একটি অফিস আছে সোয়েম আহম্মেদের। তিনি কথিত মানবাধিকার অফিসের আড়ালে সেটিকে টর্চার সেল হিসেবে ব্যবহার করতেন।

হাফিজ আক্তার আরও বলেন, সোয়েমের সহযোগীরা তক্ষক কেনার লোভ দেখিয়ে বিভিন্ন মানুষকে অফিসে নিয়ে আসতেন। কেউ টাকা দিতে না চাইলে মারধর করে, র‍্যাবে ধরিয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে টাকা হাতিয়ে নিতেন।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন