বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ইসতিয়াক এম সৈয়দ আজ বিকেলে প্রথম আলোকে বলেন, ক ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা থাকায় আমিসহ হল প্রশাসনের একটি অংশ তা নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম। সাড়ে ১২টার দিকে ৫০ জনের বেশি শিক্ষার্থী হলে আসেন। হলের মূল ফটকের পকেট গেটটি তখন খোলা ছিল। শিক্ষার্থীরা ওই ফটক দিয়ে ঢোকেন। নিরাপত্তার স্বার্থে হলের ভেতরের ভবনগুলো তালাবদ্ধ ছিল। শিক্ষার্থীরা ওই তালাগুলো ভেঙে হলের ভেতর ঢুকে পড়েছেন।

পদার্থবিজ্ঞানের এই শিক্ষক জানান, প্রশাসনের অংশ হওয়ায় তাঁদের বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তের বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক এবং পুষ্টি ও খাদ্য বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের শিক্ষক মো. নিজামুল হক ভূইয়া বলেন, অমর একুশে হলের প্রাধ্যক্ষ ইসতিয়াক এম সৈয়দ তাঁকে অনুরোধ করলে শিক্ষর্থীদের সঙ্গে কথা বলতে হলটিতে যান। ৫ অক্টোবরের আগে হলে না ওঠার অনুরোধ জানালেও শিক্ষার্থীরা হল থেকে চলে যেতে অস্বীকৃতি জানান।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর এ কে এম গোলাম রব্বানী প্রথম আলোকে বলেন, অমর একুশে হলে শিক্ষার্থীদের উঠে পড়ার বিষয়টি তাঁরাও জানতে পেরেছেন৷ হল কর্তৃপক্ষকে আলোচনার ভিত্তিতে বিষয়টির দ্রুত সমাধান করতে বলা হয়েছে।

default-image

গত ১৮ সেপ্টেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সভায় হওয়া সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, অন্তত এক ডোজ টিকা নেওয়ার প্রমাণপত্র ও বিশ্ববিদ্যালয়ের বৈধ পরিচয়পত্র থাকা সাপেক্ষে স্নাতক চতুর্থ বর্ষ ও স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থীদের আগামী ৫ অক্টোবর সকাল ৮টা থেকে আবাসিক হলে তোলা হবে। দেশে করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার পর গত বছরের ২০ মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলো বন্ধ ঘোষণা করা হয়। এরপর থেকে হলগুলো বন্ধই আছে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন