বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রাজধানীর হাতিরপুলে ইস্টার্ন প্লাজার শাড়ির দোকানের কর্মচারী রিপন শরিফ সপরিবার কামরাঙ্গীরচরের পূর্ব রসুলপুরে থাকত। গত বুধবার রাতে কর্মস্থল থেকে বাসায় ফেরার পথে পূর্ব রসুলপুরে একই এলাকার কিশোরদের হাতে ছুরিকাঘাতে খুন হয় রিপন শরিফ। ওই ঘটনায় বুধবার রাতে রিপনের বড় ভাই সুজন শরিফ বাদী হয়ে চার কিশোরসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে কামরাঙ্গীরচর থানায় হত্যা মামলা করেন।

কামরাঙ্গীরচর থানার পুলিশ জানায়, কিশোর রিপন কর্মস্থল থেকে ফিরে পূর্ব রসুলপুরে বাসার কাছে তার বন্ধুদের নিয়ে মুঠোফোনে গেমস খেলছিল। ওই এলাকার এক কিশোর এ সময় রিপনের কাছ থেকে মুঠোফোন কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। একপর্যায়ে রিপনের সঙ্গে ধস্তাধস্তি হলে ওই কিশোরের মাথায় আঘাত লাগে। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে ওই কিশোর তার বন্ধুদের ডেকে আনে। তারা এসে রিপন ও তার বন্ধুদের সঙ্গে মারপিটে জড়ায়। একপর্যায়ে রিপনের পেটে ও বুকে ছুরিকাঘাত করে প্রতিপক্ষের যুবক ও কিশোরেরা পালিয়ে যায়। পরে রিপন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যায়।

কামরাঙ্গীরচর চর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোস্তাফিজুর রহমান গত রাতে প্রথম আলোকে বলেন, পাঁচ আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে জনি (২২) ও এক কিশোর ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। পরে জনিকে কারাগারে এবং চার কিশোরকে টঙ্গীর কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে।

গতকাল বিকেলে ময়নাতদন্ত শেষে রিপনের লাশ শরিয়তপুরের পালেরচর গ্রামের বাড়িতে দাফন করা হয়।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন