আজ তেজকুনিপাড়া উড়াল সেতুর নিচের ছয়টি দোকান ঘুরে দেখা যায়, একটিতে বোতলজাত সয়াবিন তেল রয়েছে, পাঁচটিতে নেই। চারটিতে খোলা সয়াবিন তেল আছে, যা ২১০-২২০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

তেজকুনিপাড়ায় এখনো নতুন দামের বোতলজাত সয়াবিন তেল সরবরাহ করেনি তেল কোম্পানিগুলো। এখানকার রনি ট্রেডার্সের মালিক আমিনুল ইসলাম বলেন, বোতলজাত সয়াবিন তেল ঈদের দুই দিন আগেই শেষ। তার পর থেকে কোনো কোম্পানি তেল দিয়ে যায়নি।

আমিনুল ইসলাম আরও বলেন, ‘সয়াবিন তেল না থাকায় শর্ষের তেলের ওপর চাপ পড়েছে। আমার দোকানে ছোট কয়েক বোতল শর্ষের তেল রয়েছে। প্রতি সপ্তাহে একবার শর্ষের তেল দিয়ে গেলেও এ সপ্তাহে আসেনি। আজকে না এলে হয়তো কোনো তেলই থাকবে না আমার দোকানে।’

তেল দিয়ে না গেলেও রাজধানীর কারওয়ান বাজার থেকে গত শনিবার রাত ১০টার পর ৪ কার্টন বোতলজাত সয়াবিন তেল আনেন তেজকুনিপাড়ার খোরশেদ জেনারেল স্টোর। গতকাল রোববার রাতে তা শেষ হয়ে যায়।

এই দোকানের মালিক সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘২৪ ঘণ্টার মধ্যে আমার দোকানের ৭২ লিটার তেল শেষ। তবে কেউ অস্বাভাবিকভাবে তেল কেনেনি। আজকে আবার কারওয়ান বাজার থেকে নিয়ে আসব।’

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন