জবানবন্দি শেষে কারাগারে দিহান

default-image

গত বৃহস্পতিবার দুপুরে ধানমন্ডির আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কলাবাগান থানায় ফোন করে জানায়, এক তরুণ এক কিশোরীকে হাসপাতালে মৃত অবস্থায় এনেছেন। কিশোরীর শরীর থেকে রক্ত বের হচ্ছে। কলাবাগান থানার পুলিশ আনোয়ার খান হাসপাতালে গিয়ে ফারদিন ইফতেখার ওরফে দিহান নামের ওই তরুণকে আটক করে। খবর পেয়ে তরুণটির তিন বন্ধু হাসপাতালে গেলে পুলিশ তাঁদেরও আটক করে। দিহান মেয়েটির মাকেও আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতালে যেতে ফোন করে জানান, ‘আপনার মেয়ে অচেতন অবস্থায় হাসপাতালে আছে।’

কলাবাগান থানার পুলিশ জানায়, গত বৃহস্পতিবার গভীর রাতে স্কুলছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে কলাবাগান থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেন। মামলায় দিহানের বিরুদ্ধে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ আনা হয়। আটক দিহানের ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়। আজ তিনি আদালতে জবানবন্দি দেন। পরে তাঁকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়।

বাসা থেকে আলামত জব্দ

আদালতে দেওয়া তানভীরের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পুলিশের নিউমার্কেট অঞ্চলের জ্যেষ্ঠ সহকারী কমিশনার আবুল হাসান। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, গত বৃহস্পতিবার দুপুরে দিহানকে মডার্ন হাসপাতাল থেকে আটক করে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে তিনি ছাত্রীটিকে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেন। ওই তরুণ দাবি করেছেন, মেয়েটি তাঁর পূর্বপরিচিত। বাসার সবাই ঢাকার বাইরে থাকায় এ সুযোগে তাকে নিজেদের ফ্ল্যাটে নিয়ে যান তিনি। একপর্যায়ে তাঁদের মধ্যে শারীরিক সম্পর্ক হয়। এরপরই মেয়েটি অচেতন হয়ে পড়লে তিনি তাকে প্রাইভেট কারে করে আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। প্রাইভেট কারটি জব্দ করা হয়েছে। তাঁর বাসার যে কক্ষে ঘটনা ঘটেছে, সেখান থেকে আলামত জব্দ করা হয়েছে।


যাচাই হচ্ছে তিন বন্ধুর মোবাইল রেকর্ড


পুলিশ কর্মকর্তা আবুল হাসান বলেন, ধর্ষণের ঘটনায় তানভীরের তিন বন্ধু জড়িত কি না, সে বিষয়ে তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তাঁদের মুঠোফোনের কল রেকর্ড যাচাই করে দেখা হচ্ছে। একই সঙ্গে তানভীরের বাসা থেকে আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতাল পর্যন্ত রাস্তার ধারের ক্লোজড সার্কিট (সিসি) ক্যামেরা বিশ্লেষণ করা হচ্ছে। এতে তাঁদের সম্পৃক্ততা পাওয়া গেলে গ্রেপ্তার করা হবে। জড়িত থাকার তথ্য পাওয়া না গেলে মুচলেকা নিয়ে তাঁদের মা-বাবার জিম্মায় দেওয়া হবে।

তবে কিশোরীটির পরিবারের অভিযোগ, দিহান একা নন, তাঁর অন্য তিন বন্ধুও এই অপকর্মে জড়িত।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন