বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নতুন কমিটির সহসভাপতিরা হলেন মাখদুমা নার্গিস, নাজমুন নাহার, রেখা চৌধুরী, রওশন আরা বেগম, আঞ্জুমান আরা আকসির, লক্ষ্মী চক্রবর্তী, ফেরদৌস আরা মাহমুদা, হান্নানা বেগম, নুরজাহান বেগম, সাহানা কবির, রাশেদা খালেক, কল্পনা রায়, শিপ্রা রায়, কানিজ রহমান, গৌরী ভট্টাচার্য। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন সীমা মোসলেম ও মাসুদা রেহানা বেগম।

দ্বিতীয় কর্ম অধিবেশনে পাঁচটি কমিশনভিত্তিক দলীয় কাজের সুপারিশ উপস্থাপন করা হয়। কমিশনভিত্তিক আলোচনার সারসংক্ষেপ উপস্থাপন করেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সীমা মোসলেম। আলোচনার বিষয়গুলো পর্যালোচনা করে তিনি বলেন, বর্তমান পরিস্থিতির পরিবর্তনে নারী–পুরুষের সামাজিকীকরণে যেসব প্রতিষ্ঠান ভূমিকা পালন করে, তাদের করণীয় বিষয়ে ভাবার বিষয়ে জোর দেওয়া হয়।

ফওজিয়া মোসলেম বলেন, কর্মসূচির বাস্তবায়নে চিন্তাভাবনার জায়গায় কেন্দ্রের সঙ্গে জেলার অনেকাংশেই মিল রয়েছে। এটি সংগঠনের ৫০ বছরের অগ্রযাত্রার ক্ষেত্রে অত্যন্ত ইতিবাচক। গণতান্ত্রিক, মানবিক ও অসাম্প্রদায়িক পরিবেশে সবাই স্বাচ্ছন্দ্যমতো বসবাস করতে পারে। এমন পরিবেশ নিশ্চিত করতে যা কিছু করণীয়, তা কমিশনভিত্তিক আলোচনা ও সুপারিশের মাধ্যমে উপস্থাপিত হয়েছে।

মালেকা বানু বলেন, ‘নারীর উন্নয়নের জন্য আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। সবাই মিলে সমন্বয় করে কাজ করলে আশা করি আমরা আমাদের লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারব।’
সংগঠনের সহসভাপতি লক্ষ্মী চক্রবর্তী বলেন, সাংগঠনিক লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যের বাস্তবায়ন করতে হলে তৃণমূল ও কেন্দ্রের সাংগঠনিক আন্তসম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন