বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেছেন, বারোটা বাজার আগে থেকেই পুরান ঢাকার বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দারা বাড়ির ছাদে আতশবাজি ফোটাতে শুরু করেন, ফানুসও ওড়ান। ধোলাইখাল বড় মসজিদের সামনে একটি পাঁচ তলা ভবন থেকে কিছু ফানুস উড়িয়েছিলেন ভবনের বাসিন্দারা। এর একটি ওপরে না উঠে, নিচে নেমে যায়। পরে সেটি ভবনের বৈদ্যুতিক তারের সঙ্গে জড়িয়ে গেলে আগুনের সূত্রপাত হয়। সেই আগুন থেকে ভবনটির পাশের গাড়ির টায়ারের কয়েকটি দোকানে ছড়িয়ে পড়ে। তবে তাৎক্ষণিকভাবে ফায়ার সার্ভিস দল ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে, আগুন নিভিয়ে ফেলে।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী মিলন হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ‘আগুন লাগার পর এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। অনেকে বাসা থেকে নিচে নেমে নিরাপদ স্থানে অবস্থান নেন। এলাকার বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করে দেওয়া হয়। পরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে রাত ২টার দিকে আমরা সবাই ঘরে ফিরি।’

ঘটনাস্থলে আছে সূত্রাপুর ফায়ার স্টেশনের এক কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেন, ফানুস থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। পুরান ঢাকায় আগুন ছড়িয়ে পড়লে তা নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হতো। ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানাতে পারেননি এই কর্মকর্তা।

এদিকে রাত ২টার দিকে এ প্রতিবেদন লেখার সময় পুরান ঢাকার ওয়ারী, নারিন্দা, লক্ষ্মীবাজার, সূত্রাপুর, ধূপখোলা, গেন্ডারিয়াসহ বিভিন্ন এলাকায় বাড়ির ছাদে আতশবাজি ফোটানো ও ফানুস উড়াতে দেখা যায়।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন