বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বংশাল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) হাসান মাতব্বর প্রথম আলোকে বলেন, প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন ওই নারী। বাসার পাশের ওই স্কুলে তাঁর মেয়ে পড়াশোনা করে। তাঁর বাসায় সবসময় লোক থাকেন। স্কুল ফাঁকা থাকা অবস্থায় সেখানে গিয়ে আত্মহত্যা করে থাকতে পারেন তিনি।

এসআই আরও বলেন, লাশ উদ্ধার করে বিকেলে ময়নাতদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ মিটফোর্ড হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ সূত্র বলছে, লাশের পাশে ইঁদুর মারা বিষের খালি প্যাকেট, একটি রাসায়নিকের খালি বোতল ও একটি চিরকুট পাওয়া গেছে। চিরকুটে লেখা আছে, ‘আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়।’ স্কুল ও আশপাশের বাসার সিসিটিভির ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে। সেখানে দেখা গেছে, ওই নারী দুপুরে স্কুলে প্রবেশ করছেন। তখন স্কুলে কেউ ছিলেন না।

এদিকে এ ঘটনায় ওই নারীর পরিবারের কেউ কথা বলতে রাজি হননি। পরিবারের সদস্যরা বলছেন, ‘এটা পারিবারিক মান–সম্মানের বিষয়। গণমাধ্যমকে এ বিষয়ে আমরা কোনো কথা বলতে চাই না।’

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, ওই নারী বংশাল সিদ্দিক বাজার এলাকার ব্যবসায়ী মৃত আবদুল বাসেদের স্ত্রী। তাঁর এক ছেলে ও তিন মেয়ে রয়েছে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন