বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ফার্মগেট এলাকায় শিক্ষার্থীরা বাসসহ কোনো গণপরিবহন চলাচল করছে দিচ্ছেন না। ব্যক্তিগত গাড়ির চালকের লাইসেন্সসহ কাগজপত্র তল্লাশি করে দেখা হচ্ছে। কোনো অসংগতি পেলে গাড়ি আটকে রাখা হচ্ছে। তবে অ্যাম্বুলেন্স চলাচলে কোনো বাধা দেওয়া হচ্ছে না।

default-image

শিক্ষার্থীদের আন্দোলন নিয়ে হলিক্রস কলেজের সামরিজা ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, জীবনের মূল্য অর্থ দিয়ে নির্ধারণ করা যাবে না। একটি দুর্ঘটনা ঘটবে, আর জরিমানা দিয়ে ছাড় মিলবে, এমনটি হবে না। অন্যদিকে, সরকারি বিজ্ঞান কলেজের শিক্ষার্থী শেখ আরাফাত বলেন, যতক্ষণ দাবি না মানা হবে, ততক্ষণ আন্দোলন চলবে।

এ ছাড়া সরকারি বিজ্ঞান কলেজের শিক্ষার্থীরা ১০ দফা দাবি পেশ করেছেন। হলিক্রস কলেজের শিক্ষার্থীরাও আট দফা দাবির কথা জানিয়েছেন।

default-image

ঘটনাস্থলে উপস্থিত তেজগাঁও জোনের পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) রুবাইয়াত জামান প্রথম আলোকে বলেন, ‘শিক্ষার্থীরা তাদের বক্তব্যগুলো আমাদের জানিয়েছে। কিন্তু সবকিছুর সমাধান রাজপথে যেমন হয় না, তেমনি সবকিছুর সমাধান দেওয়ার মালিকও পুলিশ না। তারা তাদের বক্তব্যগুলো বলছে। সেগুলো যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছে দিচ্ছি।’

পুলিশের এই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘তারা যে দাবিগুলো করেছে, তা দীর্ঘমেয়াদি। ৫-১০ মিনিটের মধ্যে মেনে নিলাম, বলে দিলাম, তাহলে সেগুলো কথার কথা হয়। সরকার নিশ্চয়ই বিষয়গুলো সমাধানের জন্য চিন্তাভাবনা করছে।’

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন