শিক্ষার্থীদের চলমান আন্দোলনের মধ্যেই গত ২৯ নভেম্বর রাত ১০টার কিছু পরে রামপুরায় অনাবিল বাসের চাপায় মাইনুদ্দিন ইসলাম মারা যায়। নিসআ জানায়, এই ঘটনার কিছু সময় পর তাদের কেন্দ্রীয় কমিটির একজন আহ্বায়ক নিজ বাসায় যাওয়ার পথে অনাবিল বাস দ্বারা ওই শিক্ষার্থীকে পিষে হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষুব্ধ জনতার প্রতিবাদের বিষয়টি তাঁর নজরে আসে। তিনি তা রাত ১০টা ৫৭ মিনিটে সরাসরি সম্প্রচার করেন, যা ১ মিনিট ৯ সেকেন্ড প্রচার হয়।

নিসআর পেজের এই সম্প্রচারকে কেন্দ্র করে ‘অনুবীক্ষণ’ নামের একটি প্রায় ৫০ হাজার লাইকের পেজ থেকে নিসআর নামে গুজব ছড়ানো হচ্ছে বলে সংগঠনটি অভিযোগ করে। তারা আরও বলে, এই পেজের সূত্র ধরে সড়ক পরিবন ও সেতুমন্ত্রী এবং তথ্যমন্ত্রী নিসআর পেজকে ইঙ্গিত করে জামায়াত সমর্থিত ‘বাঁশেরকেল্লা’ পেজের যোগসূত্র আছে কি না, সে প্রশ্ন তোলেন। যদিও মন্ত্রীরা ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ পেজের নাম উল্লেখ করেছেন।

নিসআ তাদের বিবৃতিতে বলেছে, রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ দুজন মন্ত্রী কোনো তথ্যপ্রমাণ ছাড়া মামুলি একটি ফেসুবক পেজের রেফারেন্স দিয়ে জাতির সামনে যে বিভ্রান্তিমূলক বক্তব্য দিয়েছেন, তা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। নিসআ এই ভুল তথ্যের প্রতিবাদ জানিয়েছে। পাশাপাশি অনুবীক্ষণ নামের পেজটি থেকে বিভ্রান্তিমূলক ও ভুল তথ্য ছড়ানোর নিন্দা জানিয়ে নিসআ বলেছে, পেজটি যদি তাদের ভুল স্বীকার করে পোস্ট ডিলিট না করে, তবে তারা আইনি সহায়তা নেবে। এ ছাড়া ২৯ নভেম্বর রাতে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের শাস্তিও দাবি করেছে তারা।

২০১৮ সালে নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সমন্বয়ে গড়ে ওঠা প্ল্যাটফর্ম নিরাপদ সড়ক আন্দোলন।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন