বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ভর্তির যোগ্যতা ও নিয়মাবলিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি মোটা হরফে উল্লেখ করেছে, লটারিতে উত্তীর্ণ হওয়ার পরও যদি কোনো শিক্ষার্থী প্রাতিষ্ঠানিক শর্ত (শিক্ষার্থীর যোগ্যতা) পূরণে ব্যর্থ হয়, তবে সে ভর্তির জন্য অযোগ্য বলে বিবেচিত হবে। অর্থাৎ শর্তের অতিরিক্ত ওজন বা কম ওজন, বেশি লম্বা বা খর্ব কোনো শিশু স্কুলটিতে ভর্তি হতে পারবে না।


সংবাদ প্রকাশের পর প্রথম আলোতে পাঠানো এক বিবৃতিতে মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজ কর্তৃপক্ষ বলছে, ‘প্রথম আলোর প্রতিবেদনের চিন্তাধারার সঙ্গে আমরা সম্পূর্ণ একমত। তবে দুঃখের সঙ্গে জানাতে হচ্ছে যে, একটি বিরাট সংখ্যক অভিভাবক মিথ্যা জন্ম সাল দিয়ে অনেক বয়স্ক বাচ্চাকে শিশু শ্রেণিতে ভর্তির চেষ্টা করে। মূলত তাদের নিরুৎসাহিত করতেই এই অনাকাঙ্ক্ষিত শর্তাবলি আরোপ করা হয়েছে। সেই কারণে খুব অল্পসংখ্যক (১ শতাংশের কম) এই বাছাই পদ্ধতিতে বাদ পড়ে। শারীরিক বিষয়ে বিজ্ঞাপনের ভাষা পরিবর্তন দরকার।

এই ভাষা ব্যবহারের কারণে যারা ব্যথিত হয়েছেন তাদের কাছে আমরা আন্তরিক দুঃখ প্রকাশ করছি এবং ভবিষ্যতে বিজ্ঞাপন প্রকাশের ব্যাপারে আরও সতর্কতার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি।’

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন