বিজ্ঞাপন

পরিবারের বরাত দিয়ে পুলিশ কর্মকর্তা বাচ্চু মিয়া জানান, মোবাইলে গেমস খেলাকে কেন্দ্র করে চাঁদনিকে বকা দেয় তার বাবা-মা। এতে সে অভিমান করে রাত আটটার দিকে যাত্রাবাড়ীর মাতুয়াইলে নিজ বাসায় ফ্যানের সঙ্গে ফাঁস দেয়।

উদ্ধারের পর চাঁদনিকে প্রথমে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নেওয়া হয়। এরপর রাত ১০ টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

চাঁদনির এক আত্মীয় মো. শরীফ জানান, লেখাপড়ায় মনোযোগী না হয়ে মোবাইল গেমসে আসক্ত হয়ে পড়ে চাঁদনি। এতে তার কাছ থেকে মোবাইল কেড়ে নেয় বাবা-মা। এই অভিমানে সে আত্মহত্যা করেছে। তার বাবা একজন মাছ ব্যবসায়ী।

এদিকে পারিবারিক কলহের জেরে রবিন নামের ওই তরুণ লালবাগের আমলিগোলার ভাড়া বাসায় ফাঁস দেন বলে পরিবারের দাবি। অচেতন অবস্থায় মঙ্গলবার রাত নয়টার দিকে তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হয়। এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

রবিনের বড় ভাই রুবেল প্রথম আলোকে বলেন, রবিন দর্জির দোকানে কাজ করতেন। বড় বোনের সঙ্গে কথা-কাটাকাটির জেরে তিনি ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে ফাঁস দেন। তাঁদের গ্রামের বাড়ি ফরিদপুরে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন