বিজ্ঞাপন

মিতুর এমন অবস্থা দেখে খাদ্য অধিদপ্তরের ওএমএসের পরিবেশক মো. আসাদুজ্জামানের দোকানের প্রতিনিধি সাদ্দাম হোসেনের সঙ্গে কথা বলে প্রথম আলোর প্রতিবেদক। এ বিষয়ে ওই দোকানের সামনে লাইনে দাঁড়ানো অন্যদের মতামত জানতে চাওয়া হয়। পরে মিতুর অবস্থা দেখে লাইন ছাড়াই মিতুকে চাল ও আটা কেনার অনুমতি দেন লাইনের অন্য নারীরা।

সবশেষে পৌনে ১২টায় পণ্য কেনার সুযোগ পান মিতু। ওই দোকান থেকে তিনি ৫ কেজি চাল ১৫০ টাকায় এবং ৫ কেজি আটা ৯০ টাকায় কেনেন। ১০ কেজি চাল–আটা আর ছেলেকে কোলে করে ও মেয়েকে হাঁটিয়ে বাসার দিকে হাঁটতে থাকেন মিতু।

রিকশায় যাচ্ছেন না কেন, জাইতে চাইলে মিতু বলেন, ‘সকালে জামাইরে কইলাম, ঘরে একটাও চাল নাই। তখন হে (স্বামী) ২৫০ টাকা হাতে ধরাই দিসে। আর বলসে, যাও একটু কষ্ট কইরা সরকারের বিক্রি করা চাল নিয়া আস।’ চাল কেনার সুযোগ করে দেওয়ায় কৃতজ্ঞতা জানিয়ে মিতু বলেন, ‘আসল কষ্ট থেকে তো বাঁচাই দিলেন। এখন কষ্ট হইলেও হাইটাই যাইতে পারমু।’

ওই দোকানের বিক্রয় প্রতিনিধি সাদ্দাম হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ‘বাচ্চা কিংবা কোলের সন্তান সঙ্গে নিয়ে আসা নারী ও বয়স্ক নারীদের আগে দেওয়ার চেষ্টা করি। কিন্তু প্রায় এ নিয়ে বিশৃঙ্খলা হয়। তাই সবার মন রক্ষার্থে এটা করা সম্ভব হয় না।’

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন