default-image

এক লাখ টাকা বিনিয়োগে প্রতিদিন ১ হাজার ৩০০ টাকা লাভ দেওয়ার লোভ দেখিয়ে প্রায় দেড় হাজার ব্যক্তির কাছ থেকে ৬ কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। সোপান প্রপার্টিজ লিমিটেড নামের একটি ভুয়া প্রতিষ্ঠান খুলে একটি চক্র এ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।
এ ঘটনায় জড়িত অভিযোগে ভিত্তিতে সোমবার রাতে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে চক্রের মূল হোতাসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। এ সময় তাদের কাছ থেকে একটি কম্পিউটার, নগদ ৪৭ হাজার ৪০০ টাকা ও বিভিন্ন ব্যাংক অ্যাকাউন্টে প্রতারণার ৫৯ লাখ ২৬ হাজার ৫৯৪ টাকা জমা দেওয়ার রসিদ পাওয়া গেছে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন গাজি মহিউদ্দিন (২৭), তাঁর সহযোগী আনিছুর রহমান (৩৭) ও মো. হারুনুর রশীদ (৩৭)।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইম বিভাগের প্রধান অতিরিক্ত উপমহাপরিদর্শক (অতিরিক্ত ডিআইজি) শেখ মো. রেজাউল হায়দার। তিনি বলেন, সাধারণ মানুষের কাছে বিশ্বাসযোগ্য করে তোলার জন্য চক্রটি রাজধানীর মিরপুর ডিওএইচএস এলাকায় অফিস নিয়ে এই কাজ করতেন। তিনি বলেন, গত আট মাসে মূলধনসহ ২৫০% লভ্যাংশ দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে সদস্য সংগ্রহ করে এমএলএম ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিল প্রতারক চক্রটি। তারা সরকারি চাকরিজীবী ও তুলনামূলক ধনী ব্যক্তিদের টার্গেট করে সদস্য করত। ওয়েবসাইটে তারা গ্রাহকদের লগইন করার ব্যবস্থাও রেখেছিল। বিভিন্ন প্যাকেজে লভ্যাংশও দিতেন।
সিআইডির কর্মকর্তা রেজাউল হায়দার বলেন, একজন সদস্য আরও তিনজনকে নিয়ে এলে তাঁকে ১০% বোনাসসহ ১০ হাজার টাকা অতিরিক্ত লাভ দিত। এভাবে তিন মাসে ১৪২৭ জনের কাছ থেকে প্রায় ৬ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে চক্রটি।

মন্তব্য পড়ুন 0