বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সামন্ত লাল সেন বলেন, ‘বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি রোগীদের কাউকেই শঙ্কামুক্ত বলা যাচ্ছে না। কারণ, লঞ্চের বদ্ধ ঘরে আটকা পড়ায় আগুনে তাঁদের সবারই শ্বাসনালি পুড়ে গেছে।’

বার্ন ইনস্টিটিউটে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এখানে ২১ জন ভর্তি হন। তাঁদের মধ্যে একজন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। পাঁচজন শঙ্কামুক্ত হওয়ায় তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

বার্ন ইনস্টিটিউটে যাঁরা ভর্তি আছেন, তাঁরা হলেন জেসমিন আক্তার (৩৫), বাচ্চু মিয়া (৫১), ইশরাত জাহান (২২), শাহিনুর খাতুন (৪৫), মারুফা (৪৮), সেলিম রেজা (৪৫), লামিয়া (১৩), তামিম হাসান (৮), মমতাজ (৭০), মো. রাসেল (৩৮), বঙ্কিম মজুমদার (৬০), মনিকা রানী (৪০), গোলাম রাব্বি (২০), খাদিজা (২৭) ও বশির (৩৫)। তাঁদের মধ্যে মারুফা ও শাহিনুর নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রয়েছেন। তাঁদের শরীরের ৫ থেকে ৪০ শতাংশ পর্যন্ত পুড়ে গেছে বলে ইনস্টিটিউটে ভর্তি রোগীদের নথি থেকে জানা গেছে।

রাজধানী থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন